খুলনা জাতীয় প্রধান খবর বাগেরহাট রাজনীতি

দেশের গণহত্যার দায়ে খালেদা জিয়ার বিচার হবে ;উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নৌ- পরিবহন মন্ত্রী

 শওকত আলী বাবু বাগেরহাট:  নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাহাজান খান বলেছেন, যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাতে বিএনপি- জামায়াত এক হয়ে দেশে গণহত্যা শুরু করেছে। গুলি করে, কুপিয়ে ও আগুন দিয়ে  পুড়িয়ে তঁরা একের পর এক মানুষ হত্যা করে চলেছে। যারা ১৯৭১ সালে গণহত্যা শুরু করে  ছিল বাঙ্গালী জাতীকে নিধন করতে তারা এখন আবার গণহত্যা শুরু করেছে। দেশব্যাপী  এ গণহত্যার জন্য বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়ার বিচার করা হবে। শুক্রবার দুপুরে  বাগেরহাটের মংলায় পুশুর নদীর চ্যালেন খনন কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা  বলেন। মন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত দেশে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে, কুপিয়ে, ও গুলি করে  ১২ জন পুলিশ সদস্য, ২৭ জন গাড়িচালক ও দুই জন বিজিবি সদস্যসহ অসংখ্য আওয়ামী  লীগ নেতাকর্মীকে হত্যা করেছে। শাহাজান খান বলেন, একের পর এক লোকসানের কারনে বিগত সরকারের সময় মংলা বন্দর  অচল হয়ে পড়ে ছিল। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় এসে মৃত মংলা বন্দরকে সচল করেছে। ফিরে  এসেছে বন্দরে কর্মচাঞ্চ্যতা। এখন এ বন্দর লাভ করতে শুরু করেছে। মন্ত্রী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী আগামী ১৯ তারিখে পটুয়াখালীর পায়রা নদীর পারে দেশের  তৃতীয় সমুদ্র বন্দর নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। নৌ-মন্ত্রণালয়ের সচিব সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলামের সভাপতিত্তে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে  আরো বতৃতা করেন, বাগেরহাট-৩ আসনের সংসদ সদস্য বেগম হাবিবুন ন্নাহার  তালুকদার, মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমোডর এইচ আর ভূঁইয়া, খুলনা সিটি  কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, সি বি এর সাধারণ সম্পাদক  স.ম আবুবকর সিদ্দিক ও বাংলাদেশে নিযুক্ত চায়না দুতাবাসের ইকনোমিক এন্ড  কর্মাশিয়াল কাউন্সিলর ওয়াং জিজি আং (ডধহম তরলরধহ)  ১৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে মংলা বন্দরের পশুর নদীর চ্যানেল খনন করা হচ্ছে। ঠিকাদারী  প্রতিষ্ঠান চায়না হারবারস ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেড এ খনন কাজ করছে। চুক্তি অনুয়ায়ী বন্দরের পশুর চ্যাানেলের জেটি থেকে মুরিং বয়া পর্যন্ত ১৪  কিলোমিটার নদী পথের ৩৫.১১ লাখ ঘন মিটার মাটি খনন করা হবে। আগামী বছরের

ডিসেম্বরের মধ্যে এ খনন কাজ সম্পর্ন হওয়ার কথা রয়েছে। খনন কাজ সম্পর্ন হলে মংলা  বন্দর জেটিতে সাত দশমিক পাঁচ মিটার গভীরতা সম্পর্ন জাহাজ ভিড়তে পারবে বলে বন্দর  কর্তৃপক্ষ আশা করছেন।