লাইফ স্টাইল

কোরবানির প্রয়োজনীয় অনুষঙ্গ

ঢাকা: পশু জবাই করা, চামড়া ছেলানো, হাড়-মাংস কেঁটে ভাগ ভাগ বা আলাদা করা- এসব কিছুতেই পশু কোরবানির কিছু গুরুত্ত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ যেমন: দা, বটি, চাপাতি আর ছুরির দরকার হয়। এগুলো কোথায় পাওয়া যাবে, এ নিয়েই থাকছে বাংলামেইলের আজকের প্রতিবেদন।
image_58265_0
দিন আর বেশি বাকি নেই। হাতে গোনা আর মাত্র কয়েকটি দিন পরেই আসছে, পশু কোরবানির সেই মুহূর্ত। কোরবানির পশু কেনার ঝামেলাও হয়তোবা এরইমধ্যে সেরে ফেলেছেন অনেকে। তবে কোরবানির জন্য শুধু যে পশু কিনলেই চলবে এমনটিও কিন্তু নয়! আর তাইতো পশু জাবাই করা, এরপর পশুর চামড়া ছেলানো, হাড়-মাংস কেঁটে ভাগ ভাগ বা আলাদা করা- এসব কিছুতেই কিছু গুরুত্ত্বপূর্ণ অনুষঙ্গর দরকার রয়েছে। এসব গুরুত্ত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ কাঙ্ক্ষিত সময়ের আগেভাগেই সঠিক স্থানে সঠিকভাবে যদি সংগ্রহ করে রাখা যায়, তাহলে পশু কোরবানির ঝামেলা অনেকাংশেই কমে আসবে।

পশু কোরবানিকে কেন্দ্র করে রাজধানী ঢাকাসহ প্রত্যন্ত জনপদের কামারপল্লীগুলোও এখন অনেকটাই ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। দগদগে আগুনে গরম লোহায় ওস্তাদ-সাগরেদের পিটাপিটিতে মুখর হয়ে ওঠেছে কামারশালাগুলো। আবার এসব ধাতব সরঞ্জামাদি শান দিতে শান দানগুলোতেও ভিড় ক্রমশ বাড়ছে। ভ্রাম্যমাণ শানদানীরাও ঘুরে বেড়াচ্ছেন এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায়।

রাজধানীর অন্যতম বৃহৎ পাইকারী কাঁচাবাজার কাওরান বাজারের কামারশালাগুলোর ব্যস্ততা এখন সবচেয়ে বেশি। পল্লীর অন্যতম প্রবীণ সদস্য শিপন কর্মকার বাংলামেইলকে জানান, ঈদে হাজার হাজার গরু, খাসী, ভেড়া, মহিষ, উট, দুম্বা ইত্যাদি পশু কোরবানি করা হয়ে থাকে। এসব পশু জবাই থেকে শুরু করে রান্নার চূড়ান্ত প্রস্তুতি পর্যন্ত দা-বটি, ছুরি-ছোড়া, চাপাতি ইত্যাদি ধাতব হাতিয়ার আবশ্যকীয় হয়ে যায়। তাই ঈদের বিপুল চাহিদার যোগান দিতে আরো এক মাস আগে থেকেই পল্লীর কামারেরা অর্ডার ও অর্ডারের বাইরে পুরোদমে কাজ শুরু করে দিয়েছেন।

দরদাম: লোহার দা-ছুরি সবসময়ই বেশি দামে বিক্রি হয়ে থাকে। সেক্ষেত্রে দায়ের দাম পড়বে আকৃতি ও লোহাভেদে ৫০ থেকে ৪৮০ টাকা, ছুরি ৩০ থেকে ৩০০ টাকা, ছোড়া প্রতিটি সর্বোচ্চ ৪০ টাকা, হাঁড় কোপানের চাপাতি একেকটি ২০০ টাকা থেকে ৪০০ টাকা। আর লোহা ধার করা স্টিলের দাম পড়বে প্রতিটি ৫০ টাকা থেকে ১০০ টাকা।

তবে ঈদ ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে এ দাম আরো বাড়বে বলে ধারণা করা হয়। অর্ডার দিয়েও এসব যন্ত্রপাতি বানিয়ে নেয়া যায়। তবে পুরানো যন্ত্রপাতি শান দিতে বা ‘পানি’ দিতে ১৫০ টাকা পর্যন্ত মজুরি রাখা হয়।

যেখানে পাবেন: রাজধানীর ঢাকার কারওয়ান বাজারের সংলগ্ন কামারপল্লী ছাড়াও মগবাজার, ডেমরা, ঠাটারী বাজার, মহাখালী, জুরাইন, কুড়িল কামারপল্লী থেকে আপনার প্রয়োজনীয় দা-বটি, ছুরি-ছোড়া সহজেই কিনে বা অর্ডার দিয়ে বানিয়ে নিতে পারেন।