অপরাধ কৃষি বরিশাল

মহাসড়ক এখন কৃষকের দখলে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা ,দেখার কেউ নেই

kalapara-03 (25-09-13) 01 নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া, ২৫ সেপ্টেম্বর : কলাপাড়া-পটুয়াখালী ৪৮ কিলোমিটার মহাসড়ক এখন কৃষকের দখলে রয়েছে। ব্যস্ততম এই সড়কে হাজারো কৃষক-কৃষাণী ধান স্তুপ করে রাখছে। আবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ধান মাড়াই দিচ্ছে, শুকানোর কাজ করছে। ধানের পালা থেকে শুরু করে সড়কের দুই পাশের দুই তৃতীয়াংশ দখল করে ধানের খড়কুটায় একাকার হয়ে আছে। ফলে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ধরনের যানবাহন দুর্ঘটনা কবলিত হয়ে পড়ছে। স্থানীয় এবং ঢাকাসহ বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী যাত্রীবাহী বাস চালকরা গাড়ি চালাতে গিয়ে থাকেন দুর্ঘটনার আশঙ্কায়। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে সড়কটি নিরাপদ রাখতে যেন কোথাও কোন কর্তৃপক্ষ নেই।

প্রায় একমাস ধরে এভাবে ফ্রি-স্টাইলে মহাসড়কটি দখল করে এসব কাজ চলে আসছে। আর এ কারণে কুয়াকাটাগামী ব্যস্ততম সড়কটি এখন চরম ঝুঁিকর মধ্যে রয়েছে। প্রায় সময় যাত্রীবাহী হোন্ডা উল্টে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে মানুষ। দু’টি বাস মুখোমুখি ক্রস করতে গিয়ে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনায় পড়ছে। অতি সম্প্রতি কলাপাড়া-কুয়াকাটা সড়কের নাওভাঙ্গা স্পটে বাসকে ক্রস করার পথ দিতে গিয়ে ভাড়াটে হোন্ডা চালক মিলন রাস্তায় উল্টে পড়ে যায়। বর্তমানে তিনি বরিশাল শেবাচিমে জীবনযুদ্ধ চালাচ্ছে।
কলাপাড়া পটুয়াখালী ও বরিশাল রুটে চলাচলকারী আরজ অরবিট বাসের চালক আলিম মিয়া জানান, ঁেভজা খড়কুটার উপর দিয়া গাড়ি চালাতে গিয়ে নিয়ন্ত্রন রাখা যায় না। এ কারণে দুর্ঘটনায় পড়তে হয়। তিনিসহ সড়কে চালাচলকারী গাড়ির চালকরা দ্রুত সড়কের উপর এ ধরনের কর্মকান্ড বন্ধ করার দাবি জানান।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে সড়ক ও জনপথ বিভাগের কলাপাড়া অফিসের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. বেলাল হোসেন বলেন, মহাসড়কের উপর দেশের অন্য কোথাও ভিজে খড়-কুটা শুকাতে দেয়া হয়না। কিন্তু আমতলী থেকে কুয়াকাটা পর্যন্ত সড়কের পাশের বাসিন্দারা এ কাজটি করছে। তাদের বার বার বারণ করা সত্যেও আমাদের কথা শুনছেন না। সচেতন মহলের দাবি মানুষের সড়কপথের যাত্রা নিরাপদ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হোক।