অপরাধ রাজশাহী

বগুড়ায় হরতালে ট্রাকে অগ্নিসংযোগ চালক দগ্ধ জামায়াতে আমীরসহ গ্রেফতার ১০

download (1) বগুড়া অফিস :  ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের বগুড়ার শেরপুর উপজেলার দশ মাইল নামক স্থানে সার বোঝাই ট্রাকে আগুন দেয়ার ঘটনায় জামায়াতে আমীর ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আব্দুল হালিমসহ ৭ জনকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার রাতে সার বোঝাই ট্রাকে হামলা চালিয়ে আগুন লাগিয়ে দেয়। আগুনে ট্রাক চালক শামসুল (৪০) দগ্ধ হয়। এদিকে বৃহস্পতিবার হরতাল চলাকালে শহরের কয়েকটি স্থানে ককটেল বিস্ফোরণ করে হরতাল সমর্থনকারিরা।

শেরপুর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম জানান, জামায়াতের ডাকা ৪৮ ঘন্টার হরতাল চলাকালে বুধবার রাতে শেরপুর উপজেলার দশমাইলে সার বোঝাই একটি ট্রাকে আগুন দেয় জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীরা। এতে ট্রাক চালক শামছুল (৪০) অগ্নিদগ্ধ হয়। চালকের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন ও নৈশকালিন পুলিশ এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়। এ ঘটনায় শেরপুর থানায় মামলা দায়ের করা হলে উপজেলা জামায়াতের নায়েবে আমীর ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এ্যাড. এমএ হালিমকে বৃহস্পতিবার ভোর ৫টায় হামছায়াপুর এলাকার বাসা থেকে গ্রেফতার করে। সে উল্লেখিত এলাকার মৃত সোনা মিয়া মুন্সির পুত্র। তিনি জানান, শেরপুর থানায় দায়ের করা মামলায় ১১ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৬/৭ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

বগুড়ার সদর থানার ওসি সৈয়দ সহিদ আলম জানান, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৬টায় শহরের খান্দার ও মফিজ পাগলার মোড় এলাকায় হরতাল সমর্থকরা মিছিল করে এবং রাস্তায় টায়ারে আগুন দেয় ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এ সময় পুলিশ পিকেটার সন্দেহে একজনকে আটক করে। সকাল সাড়ে ১০টায় শহরের মফিজ পাগলার মোড়ে পরপর দু’টি ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটায় পিকেটাররা। এরপরই পুলিশ সে এলাকায় অভিযান চালিয়ে পিকেটার সন্দেহে তিন যুবককে আটক করে। পরে থানায় নেয়ার পর তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। এছাড়া শহরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে পিকেটার সন্দেহে আরও ৫জনকে আটক করে পুলিশ।