জাতীয় বরিশাল

৪ জেলে গুলিবিদ্ধ , ১০ জনকে সাগরে নিক্ষেপ

kalapara-05 (15-09-13) নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া, ১৫ সেপ্টেম্বর :  কুয়াকাটা সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে সশস্ত্র জলদস্যুদের হামলায় চার জেলে গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এছাড়া আরও অন্তত ১৬ জেলে আহত হয়েছে। এ সময় সশস্ত্র জলদস্যুরা এফবি ফাতেমা ট্রলারসহ পাঁচ জেলেকে অপহরন করে নিয়ে গেছে। রবিবার সকালে কুয়াকাটা সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরের প্রায় ৪০ কিলোমিটার দক্ষিণে এক নং বয়া পয়েন্টে জলদস্যুরা এই হামলা তান্ডব চালায় । জলদস্যুদের ছোড়া গুলিতে জখম জেলে মিছির আহমেদ (৫২),আব্দুর রবকে (৪৪) আশঙ্কা জনক অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতাল ও লিটন (৩২), নুরআলমকে (৩৫) কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া জেলে আঃ মালেক, সেলিম মাঝি, বিল্লাল, নুর ইসলাম, ইউসুফ মাঝিসহ বাকিদের আহত অবস্থায় মহীপুর উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। জলদস্যুদের হাতে অপহৃত জেলেদের মধ্যে ইউসুফ মাঝি, ফারুক মিস্ত্রী, ও খায়ের মাঝির নাম জানা গেছে। আহত ও অপহৃত জেলেদের বাড়ি চরফ্যাশন উপজেলার নুরাবাদ গ্রামে।

জলদস্যুদের হামলার শিকার এফবি শাহ আমানত ট্রলারের জেলে তাজুল ইসলাম জানান, রবিবার সকালে সাগরে জাল ফেলে তারা অপেক্ষা করছিল। এসময় তিনটি ট্রলারে ৩০/৩৫ জনের সশস্ত্র জলদস্যু অতর্কিত তাদের উপর হামলা চালায়। এ সময় ট্রলারে থাকা মাছ, নগদ টাকা, জ্বালানী লুট করতে থাকে। জেলেরা বাঁধা দিলে জলদস্যুরা এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। এতে চার জেলে বিদ্ধ হয়। এছাড়া জলদস্যুরা অন্তত ১০ জেলেকে পিটিয়ে সাগরে ফেলে দেয়। প্রায় এক ঘন্টা সাগরে ভাসার পর আহত জেলেদের অন্য মাছ ধরা ট্রলারের জেলেরা উদ্ধার করে রবিবার দুপুরে মহীপুর বন্দরে নিয়ে আসে। অপহৃত জেলেদের মুক্তিপনের দাবিতে অপহরন করা হয়েছে বলে জানান। এঘটনায় গোটা উপকূলে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

মহীপুর পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের এসআই জসিম সাগরে ট্রলার ডাকাতির ঘটনা স্বীকার করে জানান, তিনি ডাকাতির কথা শুনেছেন। এ পর্যন্ত কেউ তাদের কাছে অভিযোগ না করলেও তারা খোঁজ নিচ্ছেন।

অপরদিকে রাঙ্গাবালী উপজেলার মৌডুবী এলাকার খাল গোড়ায় শনিবার রাত ১২ টায় ডাকাত সন্দেহে রামনাবাদ নদীতে মাছ ধরা জেলেদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে দুই জেলে আহত হয়। লিটন মাঝি (৪০) ও আবু তালেবকে (২৮) কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।