জাতীয় ঢাকা প্রধান খবর রাজনীতি

আগামী নির্বাচনে পুলিশকে নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করতে হবে-প্রধানমন্ত্রী

pm  নিজস্ব প্রতিবেদক,হটনিউজ২৪বিডি.কম: আগামী সংসদ নির্বাচনে নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালনের জন্য পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পুলিশ মানুষের শেষ ভরসা। এ আস্থা যেন নষ্ট না হয়, সেদিকে পুলিশ বাহিনীকে লক্ষ্য রাখতে হবে। মানুষের আরো আস্থা অর্জনের জন্য তাদের প্রতি সম্মান রেখে পুলিশ বহিনীকে নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে যেতে হবে।

রোববার রাজধানীর পুলিশ সদর দফতরে নবনির্মিত ‘ন্যাশনাল ক্রাইম কন্ট্রোল অ্যান্ড অপারেশনস্ মনিটরিং সেন্টার’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য হিসেবে আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে আপনাদের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব রয়েছে। আমার বিশ্বাস আপনারা নিষ্ঠা ও নিরপেক্ষতার সঙ্গে সে দায়িত্ব পালনে সক্ষম হবেন।

চলতি বছরের শুরু থেকে যুদ্ধাপরাধের বিচারকে কেন্দ্র করে জামায়াতি সহিংসতা প্রতিরোধে পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা প্রশংসনিয় ভুমিকা পালন করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ধর্মান্ধ জামায়াত-শিবির-হেফাজতের হিংস্র সন্ত্রাসী কর্মকান্ড রোধে পুলিশ সদস্যগণ যে ধৈর্য, সহিষ্ণুতা, ত্যাগ, নিষ্ঠা, নিরপেক্ষতা ও পেশাদারিত্বের পরিচয় দিয়েছেন তার জন্য আমি এ বাহিনীর প্রতিটি সদস্যকে ধন্যবাদ জানাই।

নবনির্মিত এনকম ভবন নির্মাণে সহযোগিতার জন্য জাপান সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, এ ভবন নির্মাণ হওয়ায় পুলিশের অভিযান চালানোর সক্ষমতা আরো বৃদ্ধি পাবে এবং আইনি সেবা কার্যক্রম আরও সুষ্ঠুভাবে পর্যবেক্ষণ করা সম্ভব হবে। কমিউনিটি পুলিশিং, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসবাদ নিয়ন্ত্রণসহ পুলিশের কমান্ড ও কন্ট্রোল সিস্টেমও নির্বিঘœ হবে। এতে পুলিশের সার্বিক কার্যক্রম আরও গতিশীল হবে। পাশাপাশি পুলিশ বাহিনীকে তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষ করে গড়ে তোলার ওপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করেন সরকার প্রধান।

এছাড়া কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব পালনকালে নিহত পুলিশ সদস্যের বিদেহী আত্মাতার গফেরাত কামনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর প্রদর্শিত পথে একটি সুশৃঙ্খল, দায়িত্বশীল, জবাবদিহিমূলক ও জনবান্ধব পুলিশ বাহিনী গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করেছে। এবার সরকারে এসে পুলিশে ৭৩৩টি ক্যাডার পদসহ ৩২ হাজার নতুন পদ সৃষ্টির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়ে। আইজিপি পদকে দেয়া হয়েছে সিনিয়র সচিবের মর্যাদা। এছাড়া পুলিশ বিভাগের একাধিক পদের গ্রেড উন্নিত করা হয়েছে।

কর্মক্ষেত্রে কোনো ধরণের চাপে প্রভাবিত না হয়ে নিরপেক্ষ ও নির্ভয়ে পেশাদার দায়িত্ব পালনের জন্য পুলিশ সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে সরকার প্রধান বলেন, বিপদগ্রস্ত মানুষ পুলিশের কাছে সাহায্যের আশায় গিয়ে যাতে কোনো ধরনের হয়রানি, দুর্ব্যবহার বা দুর্ভোগের শিকার না হন, তা নিশ্চিত করতে হবে। দেশের উন্নয়নবিরোধী যেকোনো অপশক্তি দমনে আরো কঠোর হতে হবে।

বিগত সামরিক শাসনের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, যখন মিলিটারি ডিকটেটররা ক্ষমতায় আসে তখন স্বাভাবিকভাবেই তারা নিজেদের স্বার্থ বেশি দেখে, তারা পুলিশের দিকে তাকায় না।

এনকম ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন জাপানি রাষ্ট্রদূত শিরো সাদোসিমো, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব সিকিউকে মোস্তাক আহমেদ ও আইজিপি হাসান মাহমুদ খন্দকার। এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নবনির্মিত ভবনের ফলক উন্মোচনও দোয়া মোনাজাতে অংশগ্রহন করেন।