অপরাধ বরিশাল

অভিযুক্ত পাষন্ড সৎ মা পারুলকে গ্রেফতার

kalapara-01 (14-09-13) 01নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া, ১৪ সেপ্টেম্বর :  কোন কিছুই বোঝার বয়স হয় নি। ভালমন্দ বুঝে উঠতে পারে না। অথচ নির্মম, বর্বর নির্যাতনের কী যন্ত্রণা তা সইতে অন্তরে ক্ষত হয়ে গেছে সাড়ে তিন বছরের শিশু মিমের। অসহ্য যন্ত্রনায় সে কলাপাড়া হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছে। মিমের যৌনাঙ্গে আগুনে গরম করা চামুচের ছ্যাকা দেয়া হয়েছে। সৎ মা চল্লিশোর্ধ পাষন্ড পারুল বেগম অবুঝ এই শিশুকে এমন বর্বর নির্যাতন করেছে। শুক্রবার দুপুরের পরে মিমকে এমন নির্দয় নির্যাতন করা হয়েছে। মিমের আর্তচিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলেও পাষন্ড মা নামের ডাইনি পারুল বেগমের মন গলেনি। এলাকার লোকজন সন্ধ্যায় মিমকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

পেটে খিদে লাগছিল অবুঝ শিশু মিমের। তাই মায়ের কাছে চাল ভাজা খেতে চায়। এটিই তার অপরাধ। আর এই অপরাধের খেসারত কতদিন কীভাবে দিতে হবে শিশু মিমের তা নিজেও জানে না। পুলিশ মা নামের কলঙ্ক পারুল বেগমকে শুক্রবার রাতেই গ্রেফতার করেছে। তার নামে একটি মামলা করা হয়েছে। মামলাটি করেছেন তারই স্বামী জলিল তালুকদার। কলাপাড়া উপজেলার লালুয়া ইউনিয়নের কলাউপাড়া গ্রামের শিশু নির্যাতনের এই ঘটনাটি সর্বত্র ধীক্কারের সঙ্গে আলোচিত হচ্ছে। তবে চিকিৎসক বলেছেন মিমের চিকিৎসা চলছে। দ্রুত সুস্থ হয়ে যাবে। তবে ছোট্ট শিশুটিকে ধকল সইতে হবে। মিমের তলপেট থেকে যৌনাঙ্গের চামড়া পুড়ে ক্ষত হয়ে উঠে গেছে।

জানা গেছে, মাত্র সাড়ে তিন মাস বয়সে মিমের মা সেলিনা বেগম মারা যায়। এর দেড় বছর পরে তার বাবা জলিল তালুকদার পারুল বেগমকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। সৎ মায়ের কাছেই সীমাহীন অনাদরে বেড়ে ওঠছিল মিম। অভিযুক্ত পারুল জানান, মিম পায়খানা প্র¯্রাব করে কাপড় চোপড় নষ্ট করায় তার রাগ হলে হাতে থাকা গরম চামুচ দিয়ে আঘাত করেন। এই কাজটি করা তার খুবই ভুল হয়েছে বলেও দাবি করেন। শনিবার দুপুরে পারুলকে আদালতে চালান করা হয়েছে।