সারাদেশ হটনিউজ স্পেশাল

পা হারানো রাসেলকে আরও ২০ লাখ টাকা দিয়েছে গ্রিনলাইন

হটনিউজ ডেস্ক:

বাসচাপায় পা হারানো রাসেল সরকারকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে আরও ২০ লাখ টাকা দিয়েছে গ্রিনলাইন পরিবহণ কর্তৃপক্ষ।

রাসেলের পা হারানোর ঘটনায় ক্ষতিপূরণ চেয়ে করা রিট আবেদনকারীর আইনজীবী খোন্দকার শামসুল হক রেজা সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, ‘সব মিলিয়ে ৩০ লাখ টাকা এবং চিকিৎসাবাবদ তিন লাখ ৪০ হাজার টাকা পেয়েছে রাসেল।’

জানা যায়, একটি প্রতিষ্ঠানের গাড়ি চালাতেন রাসেল। ২০১৮ সালের ২৮ এপ্রিল মেয়র মো. হানিফ ফ্লাইওভারে গ্রিনলাইন পরিবহণের ধাক্কায় প্রাইভেটকারের চালক রাসেল সরকারের (২৩) বাম পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এ ঘটনায় গাইবান্ধার একই এলাকার বাসিন্দা জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সরকার দলীয় সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট উম্মে কুলসুম স্মৃতি হাইকোর্টে রিট করেন।

হাইকোর্ট ওই বছরের ১৪ মে এ বিষয়ে রুল জারি করেন। রুলে কেন রাসেলকে এক কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চাওয়া হয়। পরে আবেদনের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট এক আদেশে রাসেল সরকারকে ৫০ লাখ টাকা দিতে নির্দেশ দেন। প্রতি মাসে পাঁচ লাখ টাকা করে দিতে বলা হয়। এ নির্দেশের পর রাসেলকে দুই দফায় ১০ লাখ টাকা এবং তাঁর চিকিৎসাবাবদ তিন লাখ ৪২ হাজার টাকা দিয়েছিল গ্রিনলাইন কর্তৃপক্ষ।

২০২০ সালের ১২ মার্চ হাইকোর্ট এক আদেশে দুই সপ্তাহের মধ্যে রাসেলকে ৫০ লাখ টাকা দিতে গ্রিনলাইন পরিবহণ কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন। একইসঙ্গে প্রয়োজন হলে তাঁর পায়ে অস্ত্রোপচার এবং কাটা যাওয়া বাম পায়ে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে কৃত্রিম পা লাগানোর খরচ দিতে পরিবহন কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

এর অগ্রগতি হলফনামা আকারে ৩১ মার্চের মধ্যে আদালতে দাখিল করতেও বলা হয়। তবে হাইকোর্টের ১২ মার্চের আদেশের বিরুদ্ধে গ্রিনলাইন কর্তৃপক্ষ আপিল বিভাগ আবেদন করে, যা ৩১ মার্চ খারিজ হয়। ফলে হাইকোর্টের আদেশ বহাল থাকে।

এরপর ২০২০ সালের ১ অক্টোবর হাইকোর্টের বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে পা হারানো রাসেল সরকারকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে আরও ২০ লাখ টাকা দেওয়ার নির্দেশ দেন। তিন মাসের মধ্যে এ টাকা দিতে বলা হয়।\

আইনজীবীরা বলেন, এ রায় নিয়ে গ্রিনলাইন কর্তৃপক্ষ আর আপিল করবে না বলে জানিয়েছে। তাই সর্বসম্মত জাজমেন্ট দিয়েছেন আদালত।

এর পরে আপিল বিভাগের নির্দেশার আলোকে চূড়ান্ত রুল নিষ্পত্তি করে ২০ লাখ টাকা দিলে সব মিলিয়ে রাসেল পাওয়ার কথা ৩৩ লাখ ৪২ হাজার টাকা। তারই আলোকে এ অর্থ পরিশোধ করল গ্রিনলাইন।