অপরাধ চট্টগ্রাম

স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর মুখে মদ ঢেলে ভিডিও ধারণ

Rape-55চট্টগ্রাম প্রতিনিধি, ১১ সেপ্টেম্বর :  চট্টগ্রামে ৪র্থ শ্রেণীর এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর মুখে মদ ঢেলে ভিডিও ধারণ করে এলাকায় ছড়িয়ে দিয়েছে দুই বখাটে।

এ ঘটনা এলাকায় জানাজানি হওয়ার পর ওই দুই বখাটেকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী।
গত বুধবার গভীররাতে এই নির্মম ঘটনাটি ঘটলেও গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ধর্ষণের শিকার মেয়েটিকে হাসপাতালে ভর্তির পর মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) বিষয়টি জানাজানি হয়।
মঙ্গলবার শিশুটিকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।
স্থানীয় বড়উঠান ইউপি চেয়ারম্যান দিদারুল আলম রাইজিংবিডিকে জানান, অতি দরিদ্র কৃষকের শিশুকন্যাটি পূর্ব শাহ মিরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী।
বুধবার গভীররাতে মেয়েটি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘর থেকে বের হলে স্থানীয় বখাটে দিদার ও সোলায়মান মিলে তাকে টেনেহিঁচড়ে পাশের একটি মুদির দোকানের পেছনে নিয়ে যায়। সেখানে দু’জন মিলে মেয়েটিকে ধর্ষণ করে এবং এ দৃশ্য মোবাইলের ভিডিওতে ধারণ করে। ধর্ষণের পর মেয়েটির মুখে মদ ঢেলে দেয় বখাটে দিদার ও সোলায়মান। এরপর ওই ভিডিও স্থানীয় বাজারে তাদের বন্ধুবান্ধবদের মাঝে ছড়িয়ে দেয়।
মেয়েটির পরিবার এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে দিদার ও সোলায়মান তাদের বাড়ি গিয়ে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এরপর ভয়ে শিশুটির মা বাবা এ বিষয়ে কোন আইনগত ব্যবস্থা নেননি।
লোকমাধ্যমে ঘটনা শুনে বড়উঠান ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দিদারুল আলম নিজ উদ্যোগে ওই গ্রামে গিয়ে ধর্ষক দিদার (২২) আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন। এ সময় ফোরকান (৩৮) নামে একজনের মোবাইলে ধর্ষণের ভিডিও পাওয়ার পর তাকেও পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।
তবে ধর্ষক দু’বখাটের মধ্যে সোলায়মান (২২) নামে একজন এখনও পলাতক আছে।
কর্ণফুলী থানা পুলিশের ওসি মহিউদ্দিন মাহমুদ জানান, শিশু ধর্ষণের ঘটনায় ওই মেয়ের ভাই বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন।
তিনি আরও বলেন, চেয়ারম্যান দু’জনকে থানায় দিয়ে গেছেন। আমরা তাদের ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়েছি। অসুস্থ মেয়েটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অপর ধর্ষককেও গ্রেপ্তার করতে পুলিশ জোর চেষ্টা চালাচ্ছে।