অপরাধ রংপুর

দম্পতি এসিডদগ্ধ, গৃহবধুর মৃত্যু

ঠাকুরগাঁও অফিস:  images (3)ঠাকুরগাঁওয়ে এক দম্পত্তি এসিড দগ্ধ হয়েছে। এত করে এসিড দগ্ধ গৃহবধু মারা গেছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ ২ জনকে আটক করেছে।

এসিডদগ্ধ দম্পত্তি হলেন, ঠাকুরগাঁয়ের শেষ সীমান্ত দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার মো. আঃ করিম এর ছেলে মোঃ জুয়েল (৪৫) ও এসিড দগ্ধ হয়ে মৃত গৃহবধু হলেন, জুয়েল এর স্ত্রী ফেন্সি বেগম (৩৮)।

এসিড আক্রান্ত জুয়েল এর বড়ভাই মোঃ এনামুল ও জুয়েল এর বাবা মোঃ আঃ করিম জানান, বুধবার দিবাগত রাত ৩ টার দিকে কে বা কারা ঘুমন্ত জুয়েল ও ফেন্সির ওপর এসিড নিক্ষেপ করে। এতে করে জুয়েল ও ফেন্সি দুজনেরই মুখমন্ডল ও শরীর এসিডে ঝলসে যায়। রাতেই তাদের দু-জনকে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলে এসিডদগ্ধ ফেন্সি মারা যায় ও জুয়েল এর অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার অফিসার ইনচার্জ ফিরোজ খান জানান, এসিড দগ্ধ হওয়ার বিষয়টি শোনার পর পরই সেখানে পুলিশ পাঠানো হয় এবং দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ থানাকে অবহিত করা হয়। এসিড দগ্ধ হয়ে ফেন্সি (৩৮) মারা যাবার পরে লাশ ঠাকুরগাঁও মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। তবে যেহেতু এটি বীরগঞ্জ থানাধীন এলাকার ঘটনা, সেহেতু ওই থানাতেই মামলা দায়ের হবে।

বীরগঞ্জ থানায় কর্মরত উপ-পরিদর্শক (এসআই) লুৎফর রহমান জানান, এসিড দগ্ধ হবার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দু-জনকে আটক করা হয়েছে। তবে তদন্তের স্বার্থে আপাতত নাম প্রকাশ করা হচ্ছে না। তবে সন্দেহ করা হচ্ছে, এসিড আক্রান্ত জুয়েল কিছুদিন আগে তার আগের স্ত্রীকে ডিভোর্স করে এবং ফেন্সিকে বিয়ে করে। এসিড নিক্ষেপের ঘটনায় তারা জড়িত থাকতে পারে। এ কারনে দু-জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

এদিকে এসিড আক্রান্ত জুয়েল এর বাবা মোঃ আঃ করিম জানান, বীরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে। তবে আক্রান্ত জুয়েল এর শারীরিক অবস্থার কোন উন্নতি হয়নি।