জাতীয় রংপুর রাজনীতি

জাতীয় পার্টি অন্যের ক্ষমতায় যাওয়ার সিঁড়ি হবে না-রংপুরে এরশাদ

download (4)রংপুর অফিস:  জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, জাতীয় পার্টি অন্যের ক্ষমতায় যাওয়ার সিঁড়ি হবে না। দেশের মানুষ পরিবর্তন চায়, তাই এবার লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে এককভাবে নির্বাচন করে ক্ষমতায় গিয়ে নির্বাচন পদ্ধতি পরিবর্তন করব। তিনি বলেন, রংপুর থেকে যাত্রা শুরু হলো, যেদিন ক্ষমতায় যাব সেদিন এ যাত্রা শেষ হবে। বুধবার রংপুর টাউন হলে রংপুর জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এরশাদ চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেন, রাষ্ট্রপতি নির্বাচন হলে দেশের মানুষ আমাকেই জনগন নির্বাচিত করবে। তিনি বলেন, আমরা ক্ষমতায় গেলে নির্বাচন পদ্ধতি পরিবর্তন করব। যে নির্বাচনে অর্থ ও পেশি শক্তি থাকবে না।

এরশাদ বলেন, ইয়াবা ও মাদকদ্রব্যে দেশ ছেয়ে গেছে। এতে করে যুবকরা বিপদগামি হচ্ছে। আর খাবারে চলছে ভেজাল। সমাজ নষ্ট হয়ে গেছে। এ থেকে পরিত্রানের জন্য জাতীয় পার্টির সরকারের প্রয়োজন। জাপার নয় বছরের শাসনামলকে তিনি স্বর্নামল উল্লেখ্য করেন। তিনি বলেন, সে সময় দেশের যত উন্নয়ন হয়েছে তা কোন সরকারের আমলে হয়নি। তাই মানুষ আবার পরিবর্তন চায় চায় জাতীয় পার্টির সরকারকে।

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, দুদলের রেষারেসির কারণে আলোচনার সব পথ বন্ধ হয়ে গেছে। আগামী নির্বাচন হবে কি না তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। আগামী সংসদ অধিবেশনে সংবিধান সংশোধন হবে কি না, দেশ কোন পথে যাবে তাও আমরা জানি না। দেশ চলছে অনিশ্চয়তার মধ্যে। এভাবে একটি স্বাধীন দেশ চলতে পারে না। দেশের মানুষ শান্তি চায় ।

তিনি বলেন, আমরা সব দলের অংশগ্রহণ ছাড়া নির্বাচনে যাব না। আগামী নির্বাচনে এরশাদ জনগনকে লাঙ্গল প্রতীকে ভোট দেওয়ার আহবান জানিয়ে জাপা নেতাকর্মীকে সংঘবদ্ধ হয়ে দলের পক্ষে কাজ করার আহবান জানান। তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি একটি দল নয়, এটি একটি পরিবার। এখানে কোন দ্বন্দ্ব নেই, আমরা সকলেই এক।

সম্মেলনে রংপুর জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি মসিউর রহমান রাঙ্গা সভাপতিত্ব করেন। অন্যান্যের মধ্যে রাখেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য বাণিজ্যমন্ত্রী জিএম কাদের, জাপা মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, জিয়া উদ্দিন বাবলু, সংসদ সদস্য আনিসুল ইসলাম মন্ডল, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম ফখর-উজ-জামান জাহাঙ্গীর, তাজুল ইসলাম, করিম উদ্দিন ভরসা, আবুল মাসুদ চৌধুরি নান্টু প্রমুখ।

 

পরে কাউন্সিল অধিবেশনে যোগ দেন জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। মসিউর রহমান রাঙ্গাকে পুনরায় রংপুর জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি ও আবুল মাসুদ চৌধুরি নান্টুকে জেলার সাধারন সম্পাদক এবং মহানগর সম্পাদক হিসেবে অ্যাডভোকেট সালা উদ্দিন কাদেরীকে সাধারন সম্পাদক করে ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির পরিবর্তে দলীয় সংবিধান পরিবর্তণ করে ২৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি করার দায়িত্ব দেওয়া হয় মসিউর রহমান রাঙ্গাকে।