অপরাধ বরিশাল

স্বামী পরিত্যাক্তার সর্বনাশ , অনাগত সন্তানকে হত্যার চেষ্টা

20677241নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া, ৩১ আগস্ট :  স্বামী পরিত্যাক্তা ২৬ বছরের দুই সন্তানের জননী হাছিনা বেগমকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে দৈহিক সম্পর্কে গর্ভের ছয়মাসের অনাগত সন্তানকে হত্যার চেষ্টা করছে প্রতারক সোয়েম গাজী (৩০)। অন্তঃসত্ত্বা ওই গৃহবধুকে কলাপাড়া, আমতলী ও পটুয়াখালীর বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে গর্ভের সন্তান নষ্ট করার চেষ্টা চালায়। কিন্তু চিকিৎসকরা কোন ঝুঁকি নেয়নি। এক পর্যায়ে প্রতারিত মহিলাকে শুক্রবার রাতে তার বাবার বাড়িতে পৌছে দেয়া হয়েছে। বর্তমানে প্রতারক সোয়েম আত্মগোপনে রয়েছে। কলাপাড়া উপজেলার লালুয়া ইউনিয়নের নাওয়াপাড়া গ্রামের ওই মহিলা এখন তার জীবন হানির আশঙ্কা করছেন।

প্রতারিত হাছিনার বাবা ফূর্তি সিকদার জানান, একই গ্রামের দৌলত গাজীর ছেলে সোয়েম গাজী প্রায়ই তার বাড়িতে আসা-যাওয়া করত। পড়শী হওয়ায় তারা এনিয়ে কোন সন্দেহ করে নি। এক পর্যায়ে সে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে তার মা মেয়ের সর্বনাশা ঘটনার জন্য সোয়েম দায়ী বলে জানতে পারেন। সোয়েম প্রভাবশালী হওয়ায় বুধবার কাউকে না জানিয়ে বিয়ের কথা বলে হাছিনাকে ফুসলিয়ে কলাপাড়া সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে প্রত্যখ্যাত হয়ে পটুয়াখালী ও আমতলী যায়। কিন্তু কেউ ঝুঁকি নেয় নি।

জানা গেছে, দুই সন্তানসহ হাছিনাকে রেখে ছয় বছর আগে স্বামী মিঠু নিখোঁজ হয়। এরপর থেকে ওই সে মা-বাবার কাছেই থাকছে। সোয়েম এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ায় এ ঘটনা ধামাচাপা দিতে চেষ্টা করছে।

এ ব্যাপারে সোয়েমের সাথে একাধিকবার মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। তবে তার বড় ভাই ইউপি সদস্য দিলীপ গাজী বলেন, তারা এ ঘটনা শুনেছেন। তবে এ ঘটনার সঙ্গে তার ভাই জড়িত নয়। তবে কেন সোয়েম ওই মেয়ের গর্ভজাত সন্তানকে নষ্টের জন্য তিন দিন ধরে বিভিন্ন হাসপাতালে ঘুরেছে জানতে চাইলে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেন নি।

লালুয়া ইউপি চেয়ারম্যান তারিকুজ্জামান তারা মীর জানান, তিনি এ ঘটনা শুনেছেন। মেয়ের বাবা তার কাছে অভিযোগ করেছেন। দুই পক্ষ যদি রাজি থাকে তাহলে একটি সমঝোতা হতে পারে। তানাহলে প্রশাসনকে অবহিত করা হবে। তারাও ওই মেয়ের ভবিষ্যত নিয়ে উদ্বিগ্ন বলে তিনি জানান।