অপরাধ ঢাকা

মুখোশধারীদের গুলিতে পুলিশ কর্মকর্তা খুন

Fajlul20130829075710হটনিউজ২৪বিডি.কম,নিজস্ব প্রতিবেদক,ঢাকা, ২৯ আগস্ট: অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফজলুল করিম রাজধানীর পশ্চিম রামপুরার নিজ বাসায় মুখোশধারী সন্ত্রাসীদের গুলিতে খুন হয়েছেন।
বৃহষ্পতিবার সকাল সাড়ে ৯ টারদিকে ৩/৪ জন অস্ত্রধারী ৭৫/২ পশ্চিম রামপুরার বাসার ভেতরে ঢুকে তার মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে পর পর তিন রাউন্ড গুলি করে। ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।
নিহতের স্ত্রী স্বপ্না করিম জানান, সকালে ফজলুল করিম গুলশানে মেয়ে ফারজানা করিমের বাসায় যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। তিনতলার ফ্লাটের দরজা ছিল খোলা। এসময়ে স্বপ্না দেখেন ৩/৪ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী মুখোশপরা অবস্থায় সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠে আসছে।
স্বপ্না জানতে চান তারা কোথায় যাচ্ছে? একথা বলার সঙ্গে সঙ্গে অস্ত্রধারীরা তার মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে একটি রুমে জিম্মি করে ফেলে।
ফজলুল করিম ছিলেন বারান্দায়। তিনি এগিয়ে আসেন এবং জানতে চান তোমরা কারা? একথা বলার সঙ্গে সঙ্গে সুখোশধারীরা তার মাখায় অস্ত্র ঠেকিয়ে পর পর তিন রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে দ্রুত পালিয়ে যায়।
গুলির শব্দ এবং স্বপ্না করিমের চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন ছুটে আসেন এবং রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান।
হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
হাসপাতালে নিহতের মেয়ে ফারজানা করিম হটনিউজ কে জানান, তাদের গ্রামের বাড়ি মুন্সিগঞ্জের সিরাজদীখানের সম্পত্তি এবং ঘরবাড়ি নিয়ে তার বাবার সঙ্গে চাচাতো ভাইবোনদের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।
ফারজানার ধারণা, তার বাবার হত্যাকান্ডের পেছনে ঐ বিরোধ কাজ করতে পারে।
নিহতের শ্যালক তৌহিদ কাশেম জানান, সিরাজদীখানের রামকৃষ্ণপুরে ফজলুল করিম অনেক মসজিদ-মাদ্রাসা ও স্কুল কলেজ করেছেন। সেসব বিষয় নিয়েও তাদের মধ্যে পারিবারিক কলহ চলছিল।
পুলিশ জানায়, নিহত ফজলুল করিম অবসর নেওয়ার আগে সিআইডিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগে কর্মরত অবস্থায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ মামলার তদন্ত করেছেন।
তার লাশ ময়না তদন্তের জন্যে মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়ার পাশাপাশি হত্যাকারীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।