অপরাধ ঢাকা

আওয়ামীলীগের দু”গ্রুপে সংঘর্ষ বাড়ী-ঘর ভাংচুর, লুটপাটআহত-২০

downloadশরীয়তপুর সংবাদদাতা :শরীয়তপুরের নড়িয়ায় অধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগের দু”গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় ১৫টি বাড়ীঘর ভাংচুর ও লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় নারী পুরুষসহ অন্ততঃ ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল ও নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্র ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এলাকায় চরম উত্তোজনা বিরাজ করছে। এ ব্যাপারে এখনো কোন মামলা হয়নি।

কালাই ভুইয়া কান্দি গ্রামের আবু বকর দেওয়ান ও নড়িয়া থানা সুত্রে জানা যায়, শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার রাজনগর ইউনিয়নের কালাই ভুইয়া কান্দি গ্রামে আওয়ামীলীগ নেতা ও ইউপি সদস্য শফিকুর রহমান হাফিজ ভ’ইয়া ও একই ইউনিয়নের থানার কান্দি গ্রামের আওয়ামীলীগ নেতা আবু সিদ্দিক খার সঙ্গে অধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলে আসছিল। সোমবার সকালে পূর্বশত্রুতার জের ধরে উভয় গ্রুপের সমর্থকরা প্রায় ২ শতাধিক লোকজন লাঠি-শোঠা,রামদা,ছেনদা,ঢাল, সরকিসহ মুখোমুখি সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। প্রায় দু ঘন্টা ব্যাপী সংঘর্ষ চলে। এক পর্ষায়ে হাফিজ ভুইয়ার সমর্থকরা পিছু হটলে আবু সিদিক খার সমর্থকরা আবু কালাম দেওয়ান, ইয়াসিন দেওয়ান, আবু তালেফ দেওয়ান, ইউসুফ আলি দেওয়ান, আবদুর সামাদ দেওয়ান, আবু বকর দেওয়ান, আবদুর লতিফ দেওয়ান, মীর কাশেম শিকদার, আমজেদ মল্লিক, সেলিম মাদবর, মোকতার হোসেন বয়রা, ফজর আলী, হাবিবুল্লা শেখ বাড়ীসহ ১৫টি বাড়ী ঘরে হামলা করে। এ সময় হামলা কারীরা ঘরে থাকা আসবাবপত্র ভাংচুর ও লুটপাট করে স্বর্নাংলকার নগদ টাকা পয়সা ও মালামাল নিয়ে যায়। বাড়ীর লোকজন বাধা দিলে হামলাকারীরা ফজর আলী হাবিব উল্লাহ সেক, জোনায়েত, আসমা বেগম, আঃ লতিফ, মীর কাশেম শিকদার, আমজাদ মল্লিক, সেলিম মাদবর ও মুক্তার বয়রাসহ ২০ জনকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে। এ সময় নড়িয়া থানার পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রেনে আনে। আহতদের শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল ও নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্র ভর্তি করা হয়েছে।

খলিল মৃধার স্ত্রী মমতাজ বেগম বলেন, খলিল শেখ ও আবু শিদ্দিক খার লোকজন আমাদের বাড়ী ঘরে হামলা করে মহিলাসহ ১৫-২০কে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করেছে। আমরা এর বিচার চাই।

এ ব্যাপারে শফিকুর রহমান হাফিজ ভুইয়া বলেন, আবু সিদ্দিক খা, খলিল শেখ এর নেতৃত্বে ২ শতাধিক লোকজন দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে আমার সমর্থকদের ১৫-২০টি বাড়ী ঘরে হামলা করে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট করে মালামাল নিয়ে যায়।

নড়িয়া থানার ভারপাপ্ত কর্মকর্তা আবুল খায়ের ফকির বলেন,স্থানীয় অধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু:গ্রুপে সংর্ঘষ হযেছে। পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রেনে আনে। অভিযোগ পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নিব।