অপরাধ বরিশাল

সাড়ে তিন হাজার টাকায় পুত্র সন্তান বিক্রি

kalapara-01 (16-08-13) 01 নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া, ১৬ আগস্ট :একে তো সংসারের ভরণ পোষন দেয়া হচ্ছে না। তার উপরে মদ্যপ স্বামীর অহরহ নির্যাতন আর যৌতুকের একলাখ টাকার অব্যাহত চাপ এবং ঔরষজাত সন্তানকে অস্বীকার করায় দিশাহারা হয়ে একমাস বয়সী এক পুত্র সন্তান হেলালকে মাত্র সাড়ে তিন হাজার টাকায় অন্যের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে অসহায় মা তাছলিমা বেগম। তাছলিমার সংসারে রয়েছে আরেক পুত্র সন্তান তিন বছরের বেলাল। বেলালকে নিয়েই তাছলিমার মরনদশা। তাই মাত্র এক মাস বয়সের হেলালকে বৃহস্পতিবার দুপুরে অতি কষ্টে হস্তান্তর করে দিয়েছে। তাছলিমা সরাসরি বিক্রির কথা অস্বীকার করলেও বিষয়টি এলাকার সবাই জানেন বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। সন্তান বিক্রি করে চোখের পানিতে তাছলিমা বুক ভাসালেও আনন্দে আত্মহারা হয়ে আছেন নিঃসন্তান আরেক মা নাসিমা বেগম। তিনি এখন মায়ের স্নেহে তাকে লালন শুরু করেছেন। টিয়াখালী ইউনিয়নের নাছনাপাড়া গ্রামের এই খবরটি এখন সকলের মুখে মুখে শোনা যাচ্ছে।

জানা গেছে, ওই গ্রামের আলাউদ্দিন বিশ্বাস ওরফে কালু বরিশাল জেলার বানারিপাড়া উপজেলার মিরারহাট গ্রামের বিধবা গার্মেন্টস কর্মী তাসলিমা বেগমকে পাঁচ বছর আগে ঢাকায় বসে দ্বিতীয় বিয়ে করে মিরপুরে বসবাস করেন। উভয়ের আগেই একাধিক সন্তান রয়েছে। তিন মাস আগে কালু নিজ গ্রামে এসে বসবাস শুরু করে। তাছলিমার সংসারে বেলাল (৩) এবং রমজান মাসের আগে হেলাল নামের আরেক পুত্র সন্তান জন্ম হয়।

তাসলিমা জানান, তার স্বামী নেশাগ্রস্ত হয়ে বর্তমানে মানুষিক ভারসাম্যহীন। জন্ম হওয়া সন্তান তার নয় বলে অন্য কাউকে দিয়ে আসতে বলে। রাজি না হওয়ায় তাকে শারীরিক ভাবে নির্যাতন করে আসছে। নির্যাতন থেকে রক্ষা পেতে সন্তানটিকে অন্যের কাছে দিতে বাধ্য হন তিনি। তাছাড়া তাকে ভরন পোষন এবং ঠিক মত খাবার দেয়া হয় না। সন্তান হওয়ার নতুন পর নতুন পোষাক ও ওষুধ পর্যন্ত কিনে দেয়নি। সন্তানের ভবিষ্যত চিন্তা করে অন্যের কাছে তুলে দিতে বাধ্য হয়েছেন বলে তিনি অভিযোগ করেন। তিনি আরো জানান, অটোরিক্সা কিনতে উল্টো এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করছে স্বামী কালু। ওইটাকা পরিশোধ না করলে বাবার বাড়িতে চলে যাওয়ার জন্য অব্যাহত হুমকি দিচ্ছে এবং নির্যাতন করছে।

তাই বাধ্য হয়ে কোন উপায় না পেয়ে তাছলিমা এক মাস বয়সি সন্তান হেলালকে বৃহস্পতিবার দুপুরে একই ইউনিয়নের রজপাড়া গ্রামের নিঃসন্তান নাসির উদ্দিন শিকদারের স্ত্রী নাসিমা বেগমের হাতে তুলে দেয় তাসলিমা বেগম। উভয় পরিবার নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়ার মাধ্যমে শিশুটিকে হস্তান্তর করা হয় দাবি করে। কিন্তু এলাকাবাসী জানিয়েছে সাড়ে তিনি হাজার টাকায় শিশুটিকে বিক্রি করে দেয়া হয়েছে।

সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গেলে আলাউদ্দিন বিশ্বাস কালু ক্ষীপ্ত হয়ে জানান, সন্তান হেলাল তার নয়। এ কারণে যে কাউকে দিয়ে আসতে বলেছেন।

সন্তানটিকে পেয়ে আনন্দে আত্মহারা নাসির শিকদারের স্ত্রী নাসিমা বেগম বলেন, একটি সন্তান জন্ম দেয়ার জন্য এক যুগ অপেক্ষা করেছি। কিন্তু ভাগ্যে জোটেনি। তার জা’য়ের কাছে শিশুটির খোঁজ পেয়ে উকিলের মাধ্যমে লিখিত ভাবে নিয়ে এসেছি। শিশুটিকে নিয়ে নাসিমা বেগম গোসল করিয়েছেন। নতুন জামা কাপড় পড়িয়েছেন বলে জানান।