ঢাকা লাইফ স্টাইল

অহং’ ব্যক্তিত্ব আর রুচিতে মন কাড়ে

Ahong-20130808232633আছাদুজ্জামান,হটনিউজ২৪বিডি.কম,ঢাকা:‘অহং’ ব্যক্তিত্ব আর রুচির বিবেচনায় মন কাড়ে নামটি। ‘আমিত্ব’ প্রকাশের ভিন্ন রকম প্রয়াস। শব্দটির অর্থও বোধ হয়, তাই দাঁড়ায়।বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে গুলশানের অনেকগুলো শপিংমলই ফাঁকা। তবে ব্যতিক্রম ছিল ‘গুলশান এভিনিউ’-এর ‘অহং’ নামে এই অত্যাধুনিক দোকানটি। মধ্যরাতেও ক্রেতার দেখা পাওয়া গেল এখানে।

জামদানি কাপড়ে ঢাকার ঐহিত্য ধরে রাখার চেষ্টার পাশাপাশি ক্রেতাদের ব্যতিক্রম কিছু উপহার দেওয়ার আয়োজন রাখা হয়েছে ‘অহং’-এ। নিজেদের ফ্যাশন ডিজাইনার দিয়ে চেন্নাইসহ বিভিন্ন জায়গার ডিজাইনের আয়োজন রাখা হয়েছে শাড়ি বা সালোয়ার-কামিজের এখানে।এখানে যা রাখা হয়েছে, তা সাধারণ কোনো পোশাক নয়; একটু আলাদাই। তবে দামও আলাদা রকমেরই বলতে হবে! নিজেদের ফ্যাশন ডিজাইনার দিয়ে তৈরি করা চেন্নাইয়ের একটি শাড়ির দাম সাড়ে চার লাখ টাকা। আর সালোয়ার-কামিজের দাম এক থেকে সোয়া চার লাখ টাকা। তবে সে দিক থেকে জামদানির দাম অনেক কম। এক লাখ ৩০ হাজার টাকায় ‘অহং’-এর সেরা জামদানি শাড়িটি কেনা যাবে।তবে দাম যাই হোক, ঋতু বৈচিত্র্যের সমন্বয় করে কালেকশনও করা হয়ে থাকে এখানে। এবার ঈদে গ্রীষ্ম ও বর্ষাকে মাথায় রেখে শাড়ির কালেকশন রাখা রয়েছে। আর কোরবানির ঈদের জন্য আগে থেকেই শরৎ ও শীতের বিষয়টি মাথায় রেখে কালেকশন শুরু হবে।সাধারণের জন্যও গুলশান এভিনিউয়ের ‘অহং’-এ শাড়ি বা সালোয়ার-কামিজ রয়েছে। তবে বেশিরভাগই ধনীদের জন্য।‘অহং’-এর চেয়ারম্যান এম এ হাদী জানালেন, নিজেদের জামদানির ঐতিহ্য রক্ষা করার পাশাপাশি ক্রেতাদের চাহিদা মাথায় রেখে চেন্নাই ও বেঙ্গালুরুরসহ বিভিন্ন দেশ থেকে কালেকশন করা হয়।তিনি বলেন, ‘আদি মসলিন নয়, তবে এ সময়ে তৈরি করা মসলিন কাপড়ের ওপর জামদানির কালেকশনও রয়েছে। ক্রেতাদের রুচি ও চাহিদার বিবেচনায় ঋতু বৈচিত্র্যের কথা মাথায় রেখে কালেকশন করা হয়েছে। গতানুগতিক ধারার বাইরে গিয়ে কিছু করার চেষ্টা মাত্র আর কী!’

জামদানি নিয়ে ‘অহং’ এককভাবে ফ্যাশন শো করবে বলেও জানান হাদী।

প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফ্যাশন ডিজাইনার মারজান হাদী ঝুমা বলেন, ‘ব্যতিক্রম পোশাকের কালেকশন রাখার মধ্য দিয়েই নিজেদের অবস্থা ধরে রাখবো।’

ক্রেতা অর্চনা স্যান্নাল বলেন, ‘আমি এখানে আসি এক্সক্লুসিভ কিছু কিনতে। অন্য কোনো কারণে নয়।’

শুধু শাড়ি বা সালোয়ার-কামিজ নয়। এসব পোশাকের সঙ্গে ম্যাচিং করে সোনার গহনাসহ অন্য গহনাও রাখা হয়েছে ‘অহং’-এ। ড্রেস ম্যাচিং করে কসমেটিকসের কালেকশনও রয়েছে এখানে।