প্রধান খবর রাজনীতি

এবার প্রচারণার জন্য ‘এনালগ’ কৌশল

bilbordbg20130806222156হটনিউজ২৪বিডি.কম,ঢাকা: সম্প্রতি ফেসবুকে পুত্র জয়ের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘মোরগ পোলাও’ রান্নার দৃশ্যকে অনেকেই ‘ডিজিটাল’ প্রচারণা কৌশল হিসেবে দেখছেন। এবার প্রচারণার জন্য ‘এনালগ’ কৌশলও অবলম্বন করলো আওয়ামী লীগ।রাজধানীর আজমপুর, বনানী, মহাখালী, মিরপুর ১০ নম্বর গোলচত্বর, মতিঝিল, শ্যামলী, কল্যাণপুর, বিশ্ব রোড, গুলশান, পল্টন, আগারগাঁও বাসস্ট্যান্ড, দৈনিক বাংলা, ধানমন্ডি, শেরাটন মোড়, মগবাজার, ও রামপুরাসহ মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় সরকারের উন্নয়নের বিলবোর্ড গুলো বলে দেয় প্রচারণার ‘এনালগ’ কৌশল।আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সূত্র জানায়, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন পরাজয়ের পর শঙ্কিত সরকার এ ধরনের প্রচারণার উদ্যোগ নিয়েছে।রোববার ভোর-রাত ৩ টার দিকে রাজধানীজুড়ে একযোগে এই বিলবোর্ডগুলো লাগানো হয়। বিলবোর্ডে মন্ত্রণালয় বা বিভাগের সাফল্যের কথা উল্লেখ রয়েছে। এছাড়া প্রতিটি বিলবোর্ডেই ‘উন্নয়নের অঙ্গীকার ধারাবাহিকতা দরকার’ স্লোগান দেখা গেছে। বিলবোর্ডগুলোতে সাফল্যের কথা তুলে ধরার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি দেখা গেছে। যুগান্তকারী পরিবর্তন, শিক্ষিত সমাজ, উন্নত জাতি, সৃজনশীল পরীক্ষা পদ্ধতি, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, তথ্য অধিকার আইন প্রণয়ন, দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত মেয়েদের অবৈতনিক শিক্ষা ব্যবস্থা, ‘যোগাযোগ ব্যবস্থার অগ্রগতি’, বিশুদ্ধ খাবার পানি, ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট নির্মাণ, ১৬টি নতুন টেলিভিশন লাইসেন্স প্রদান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তি করা, শিক্ষকের নতুন পদ সৃষ্টি, সারের পর্যাপ্ত মজুদ ও ভর্তুকি ইত্যাদি প্রাধান্য পেয়েছে।বেসরকারী একটি টেলিভিশনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় আভাস দিয়েছিলেন, যে নির্বাচনী প্রচারণায় তারা এবার বিভিন্ন কার্যকরী কৌশল অবলম্বন করবে।বিজ্ঞাপনের এই কৌশল অবলম্বন করার কারণ হিসেবে বুয়েট ছাত্রলীগের আহবায়ক আমিনুল হক পলাশ তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেন, সরকার অনেক ভালো কাজ করেছে কিন্তু, সরকার তার প্রচারণা এতদিন করে নি, অপপ্রচারের ঠিকঠাক জবাব দেয় নাই। তাই এখন বাধ্য হয়ে এসব প্রচারণা চালাতে হচ্ছে।তিনি আরো লিখেন, ‘কেউ চিন্তা করেনি হাতির ঝিল, যাত্রাবাড়ী ফ্লাইওভার , কুড়িল- বিশ্বরোড ফ্লাইওভারের মতো প্রজেক্ট বাংলাদেশে হবে। অথচ জনগণের কথা বিবেচনা করে এই সরকার এক মেয়াদেই এসব কাজ শেষ করেছে। রাত-বিরাতে এখন রাস্তা ঘাটে চলাচল করা যায়। ছিনতাই হবার ভয় করতে হয় না। দিন-দুপুরে বোমা হামলায় পড়ার ভয় থাকেনা। এই সরকার দারিদ্র্য ১৩% হ্রাস ও শিক্ষার হার ১৫% বৃদ্ধি করেছে, বৈদেশিক বিনিয়োগ আর রেমিটেন্স বাড়িয়েছে দ্বিগুণেরও বেশি পরিমাণ। কিন্তু হায়! সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের সময় এইগুলো দেখার তো মানুষ মনে করে দেখে নাই। তাই সরকারের এই প্রচারণা।’
২০০৯ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার নিয়ে ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার। তখন থেকে এখন পর্যন্ত সরকারের প্রতিটি কাজেই ‘ডিজিটাল ছোয়া’ রয়েছে বলে দাবি সরকারের। তবে এবারই প্রথম বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের সাথে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপনের জন্য বিলবোর্ডে বিজ্ঞাপন দিয়ে নিজেদের উন্নয়নের প্রচারনা চালাচ্ছে দলটি।