চট্টগ্রাম জাতীয়

অসহনীয় যানজট ভারী যানবাহনে ছেয়ে গেছে পুরো শহর

download শাহ মোহাম্মদ মাকসুদুল আলম, চাঁদপুর:ব্যস্ততম সময়ে ভারী যানবাহন চলাচল করায় চাঁদপুর শহরে যানজট তীব্র আকার ধারণ করেছে। অবস্থা এমন হয়েছে যে, বাসা-বাড়ি থেকে বেরুনোই দায় হয়ে পড়েছে। ঘন্টার পর ঘন্টা রাস্তায় আটকে থাকতে হচ্ছে। আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে যানজট আরো তীব্র আকার ধারণ করেছে।

জেলার সর্বোচ্চ ফোরামের সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছিলো, সকাল ৮টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চাঁদপুর শহরে ট্রাক, তেলবাহী ট্রাকসহ ভারী যানবাহন প্রবেশ করতে পারবে না। এর আগে-পরে এসব যানবাহন শহরে প্রবেশ করবে এবং শহর থেকে বের হয়ে যাবে। বিশেষ করে ঈদুল ফিতর পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত কঠোরভাবে কার্যকর করা হবে। কিন্তু সিদ্ধান্ত রেজুলেশনের বেড়াজালেই আটকে আছে। এর কোনো কার্যকারিতা নেই। দিনের বেলা এমনকি পুরো পিক্ আওয়ারে এসব ভারী যানবাহন এখন চাঁদপুর শহরে বীরদর্পে চলাচল করছে। এ কারণে শহরের যানজট অসহনীয় অবস্থায় যেয়ে পৌঁছেছে।

গত ২৯ জুলাই জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে জেলা আইনশৃঙ্খলা সমন্বয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক মোঃ ইসমাইল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় পুলিশ সুপার ও পৌর মেয়রসহ কমিটির অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় চাঁদপুর শহরে যানজটের বিষয়টি গুরুত্বের সাথে আলোচিত হয়। বলা হয়, শহরের প্রধান প্রধান সড়কগুলো পাশে অত্যন্ত সরু এবং াধিকাংশ সড়কই ফুটপাতবিহীন। এ অবস্থায় শহরে যানবাহনের সংখ্যা অনেক বেড়ে গেছে। বিশেষ করে রমজান মাসে এবং ঈদকে সামনে রেখে শহরে মানুষের এবং যানবাহনের চলাচল অনেক বেড়ে গেছে। এ জন্য যানজটও তুলনামূলকভাবে অনেক বেড়ে গেছে। এরই মধ্যে শহরে দিনের বেলা ট্রাক, তেলবাহী ট্রাক, ট্রাক্টরসহ ভারী যানবাহন ঢুকলে পুরো শহর অবরুদ্ধ হয়ে যায়। এ অসুবিধার কথা বিবেচনা করে সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়- বিশেষ করে ঈদ পর্যন্ত শহরে সকাল ৮টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত কোন ভারী যানবাহন প্রবেশ করতে পারবে না। কিন্তু ওই সভার পর থেকে দেখা গেছে, সভার এ সিদ্ধান্তের কোনো কার্যকারিতা নেই। প্রতিদিনই শহরে ওইসব ভারী যানবাহন বীরদর্পে চলাচল করছে। গতকাল সোমবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত শহরের অনন্যা সুপার মার্কেটের সামনে চতুর্মুখী যানজট লেগেছিলো। এর কারণ হিসেবে সে জায়গায় দীর্ঘক্ষণ অবস্থান করে দেখা গেছে যে, একটার পর একটা পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা অযয়েল কোম্পানির তেলবাহী ট্রাক ওই মোড় দিয়ে আসা-যাওয়া করছে। আর এ কারণে সেখানে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। ওই ভারী যানবাহনগুলো কয়েকটি রিক্সাকে চাপাও দেয়। সেখানে আগ থেকে ট্রাফিক পুলিশ থাকলেও তাকে অসহায়ের মত দিগি¦দিক ছুটাছুটি করতে দেখা যায়।