অপরাধ খুলনা

কুষ্টিয়ায় ৭ মাসে ২৮ নারী খুন

Khun3_0_0কাঞ্চন কুমার,কুষ্টিয়া থেকে:কুষ্টিয়ায় নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়েই চলেছে। উদ্বেগ জনক হারে বেড়েছে, খুন, ধর্ষন, নির্যাতনসহ নানা ধরনের সহিংস মুলক ঘটনা। যৌতুকের কারনে হত্যা, পারিবারিক বিরোধের জেরধরে হত্যা, নির্যাতনের পর হত্যা, ধর্ষন করে হত্যাসহ বিভিন্ন কায়দায় চলতি বছরের সাত মাসে কুষ্টিয়ায় ২৮ জন নারী হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছেন। হত্যাকান্ড থেকে বাদ পড়েনি নিস্পাপ শিশু, বৃদ্ধা কিংবা যুবতী। আবার এসব নারীদের মধ্যে কউ কউ হয়েছেন অপরাধীদের লালসার শিকার। হত্যকান্ডের পর শরীরের বিভিন্ন অংশ খন্ড বিখন্ডের ঘটনাও রয়েছে। অনেক সময় শ্বাসরোধে হত্যার পর আতœহত্যা বলে চালিয়ে দেয়া ঘটনাও নেহাত কম নয়। একের পর হত্যকান্ডের ঘটনা ঘটলেও ঘাতকরা থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। প্রাপ্ত তথ্য মতে জেলায় চলতি বছরের শুরু থেকে ২৫ জুলাই পর্যন্ত চলতি ৭ মাসে জেলায় ২৮ জন নারী হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছে। সুত্র জানায়, গত ২৫ জানুয়ারি কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ১২ বছরের এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়নের হাসেম আলীর কন্যা ইউসুফপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ওই ছাত্রীর মৃত লাশ উদ্ধার করা হয় একটি ইট ভাটার পুকুর থেকে। গত ১ ফেব্র“য়ারী কুমারখালি উপজেলা পান্টি ইউনিয়নের রামদিয়া গ্রামে সাইদুল ইসলামের স্ত্রী নাসিমা খাতুন (২৫) নামের এক গৃহবধুকে যৌতুকের দাবিতে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠে। গত ১৪ ফেব্র“য়ারী কুষ্টিয়ার মিরপুরে স্নিগ্ধা আক্তার রিমি (২০) নামে এক কলেজ ছাত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। গত ২১ ফেব্র“য়ারী কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার খলিশাকুন্ডিয়া থেকে উর্মি (১০) নামে স্কুল ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। গত ২৪ ফেব্র“য়ারী কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার গোপীনাথপুর থেকে জেমি (১০) নামের ৩য় শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। গত ২ মার্চ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার হোগলবাড়ীয়া ইউনিয়নের চামনাই গ্রাম থেকে জনি সরদারের স্ত্রী বীনা খাতুন (২০) নামে এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। গত ১২ মার্চ কুষ্টিয়ায় জিকেঘাট এলাকা মজিবর রহমানের মেয়ে তানিয়া রহমান মৌ (১৬) নামে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ পাওয়া যায়। গত ১৩ মার্চ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার চকদৌলতপুর গ্রাম থেকে ময়না খাতুন (২২) নামে স্বামী পরিত্যক্তা এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। গত ২০ মার্চ দৌলতপুর উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের চরভবনন্দদিয়াড় গ্রামে রওশন আরা খাতুন (৩২) নামে এক গৃহবধুকে পিটিয়ে হত্যা করে তার দেবর। গত ২২ মার্চ দৌলতপুর উপজেলার গাছেরদিয়াড় উত্তরপাড়া গ্রামে রিক্তা (৪০) নামের এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন। গত ২৭ মার্চ কুষ্টিয়া শহরের কালিশংকরপুরের নিজ বাড়ীতে পরকীয়ার জের ধরে খুন হয় তনু বাবু’র স্ত্রী শাহজাদী ফারজানা ববি (৩৫) নামের এক বিউটিশিয়ান। ১২ এপ্রিল দৌলতপুর উপজেলার চরসোনাতলা গ্রাম থেকে গিতিয়ারা খাতুন (১২) নামে ষষ্ঠ শ্রেনীর স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ২২ এপ্রিল ভেড়ামারা উপজেলার বাহিরচর ইউনিয়নের হঠাৎপাড়ায় এক লিচু বাগান থেকে বরমাইল টিকিটিকিপাড়ার সাইফুল ইসলামের মেয়ে শাপলা (২৩) নামের এক গৃহধূর মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ৩ মে ভেড়ামারা উপজেলার ধরমপুর ইউনিয়নের সাতবাড়িয়া দক্ষিণ ভবানিপুর গ্রামের দুবাই প্রবাসী বকুল প্রামাণিকের স্ত্রী নাজমা ওরফে নার্গিসের (৩৬) অগ্নিদগ্ধ লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। গত ৬ মে কুষ্টিয়া ইবি থানার হরিণারায়রপুরে নিউ জনসেবা ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় বেড়-বাড়াদী গ্রামের খোকন শেখের স্ত্রী টুম্পা খাতুন (২৫) নামে এক প্রসূতির মৃত্যুর হয়। ২২ মে কুষ্টিয়ার সদর উপজেলার মজমপুর ইউপি’র নছিমন মোড় এলাকায় মতিয়ারের স্ত্রী পলি খাতুন (১৪) নামে এক নববধূকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠে। ২৫ মে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার বারুইপাড়া গ্রামে শিপন আলীর স্ত্রী আখি খাতুন (২৪) নামে এক নববধূকে হত্যার অভিযোগ উঠে। ২৯ মে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার পল্লী নন্দনালপুর গ্রামের সুকুমার ঘোষের স্ত্রী টুম্পা বসু (২৪) নামে এক নব বধুকে মুখে বিষ ঢেলে হত্যা করার অভিযোগ উঠে। ৭ জুন কুমারখালি উপজেলা শিলাইদহ ইউনিয়নের মির্জপুর গ্রামে স্বামী শরিফ কর্তৃক স্ত্রী ঝর্ণা খাতুনকে (২২) পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠে। ৮ জুন দৌলতপুর উপজেলার গোয়াল গ্রাম এলাকা থেকে আব্দুর রাজ্জাকের দ্বিতীয় স্ত্রী রেবেকা খাতুন (৩০) নামে এক গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ ৯ জুন কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ছাতিয়া ইউনিয়নের বেশিনগর গ্রামে জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী সীমা খাতুন (২৫) নামে এক গৃহবধু স্বামীর হাতে খুন হয়। ১২ জুন মাত্র ২৫ হাজার টাকা যৌতুকের দাবিতে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের চর নওদাপাড়া এলাকার মিন্টু মিয়ার স্ত্রী মমতাজ খাতুন (২২) নামে এক সন্তানের জননীকে গলায় ওড়না পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠে। ১৩ জুন কুষ্টিয়ার সদর উপজেলার জিয়ারখীতে চাতাল শ্রমিক বড়িয়া ভাদালিয়া পাড়ার আরব আলীর মেয়ে মাসুদা বেগম (২৭) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ১ জুলাই কুষ্টিয়ায় আরিশা খাতুন (৭) নামের এক শিশু কণ্যাকে গলায় ফাঁস দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে তার পাষন্ড মা। ২১ জুলাই কুষ্টিয়ার পূর্ব মজমপুরে শারমিন আক্তার (৩৪) নামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। ২২ জুলাই কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ই.বি থানার পাটিকাবাড়ী ইউপি’র খেজুরতলা গ্রামে সোহেলের স্ত্রী নাছিমা খাতুন (২০) নামে এক গৃহবধূর ঘরের মধ্যে থেকে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ২৩ জুলাই কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের আদাবাড়িয়া গ্রামে স্বামী আব্দুল জাব্বার তার স্ত্রী ছাপাতননেছা ছাপাকে (৫৫) শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। সর্বশেষ গত ২৫ জুলাই কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার ভাগজোত কাষ্টমমোড় এলাকায় স্বামী পরিত্যক্তা রজুফা খাতুনের (৫০) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।