রংপুর রাজনীতি

দিনাজপুর জেলা জামায়াতের আমীর গ্রেফতার

wwww21মো.নুরুন্নবী বাবু দিনাজপুর প্রতিনিধি:দিনাজপুর জেলা জামায়াতে ইসলামীর আমীর মোঃ আনোয়ারুল ইসলামকে পুলিশ গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে প্রেরণ করেছে। বিস্ফোরক ও পুলিশের উপর হামলার মামলার আসামী হিসেবে ৫ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় দিনাজপুরের বিরামপুর পুলিশ সাদা পোশাকে জেলা জামায়াতের আমীর মোঃ আনোয়ারুল ইসলামকে বিরামপুর রেল ঘুন্টির কাছে গ্রেফতার করে। আনোয়ারুল ইসলাম গ্রামের বাড়ী হাকিমপুর উপজেলার ডাঙ্গাপাড়া থেকে মোটরসাইকেল যোগে ১০/১২ জন দলীয় কর্মী নিয়ে পাশ্ববর্তী নবাবগঞ্জ উপজেলায় যাওয়ার সময় সাদা পোশাকের পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। জেলা আমীরকে গ্রেফতারের সময় তার সাথে থাকা দলীয় কর্মীরা মোটরসাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায়।

আদালত সূত্র জানা যায়,  দুপুর ১ টায় আটক জামায়াতের আমীর আনোয়ারুলকে কড়া পুলিশ প্রহরায় বিরামপুর থানা থেকে দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় নিয়ে এসে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। গত ২ মার্চ পুলিশের দায়েরকৃত বিস্ফোরকদ্রব্য বিস্ফোরন ও পুলিশের উপর হামলার মামলার আসামী হিসেবে বিকেলে দিনাজপুরের অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ হায়দার আলীর আদালতে সোপর্দ করে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আজিজুল ইসলাম পিপিএম আটক জামায়াতের আমীরকে ৫ দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করেন। বিচারক আগামী বুধবার রিমান্ড শুনানীর দিন ধার্য করে তাকে জেল হাজতে প্রেরণের আদেশ দেন।

বিরামপুর থানার ওসি নাসিরউদ্দীন মন্ডল জানান, গত শুক্রবার জেলা আমীর আনোয়ারুলের নেতৃত্বে শতাধিক নেতাকর্মী ২৫টি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে ঘোড়াঘাট উপজেলার ২৫টি মসজিদে জুম্মা নামাজের পূর্বে সরকার বিরোধী বক্তব্য প্রদান করে। তারা সরকারের বিরুদ্ধে ইসলাম বিরোধী কর্মকান্ডে নাস্তিকদের সহায়তা করার অভিযোগ করে ইসলাম রক্ষায় মুসুলিদের সরকারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানায়। ওই দিন দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি দিনাজপুর ৬ আসনের সাবেক এমপি এ্যাডঃ আব্দুল লতিফের গ্রামের বাড়ী ঘোড়াঘাট উপজেলার বুলাকিপুর ইউনিয়নের কৃষ্ণরামপুর জামে মসজিদে সরকার বিরোধী বক্তব্য দেয়ার চেষ্টা করলে উপ¯ি’ত মুসুলিরা তীব্র প্রতিবাদ জানালে জামায়াতের নেতারা বক্তব্য দানে বিরত থাকতে বাধ্য হন। এসময় দ্রুত বিচার মামলার পলাতক আসামী ঘোড়াঘাট উপজেলা জামায়াতের আমীর আলমগীর হোসেন আলম উপ¯ি’ত ছিলেন। জানা যায়, ঘোড়াঘাট উপজেলার ঋষিঘাট জামে মসজিদে দ্রুত বিচার মামলার সদ্য জামিন প্রাপ্ত আসামী জামায়াতের অন্যতম সংগঠক বিরামপুর আদর্শ কলেজের প্রভাষক সাজ্জাদ হোসেন মুসুলিদের উদ্দেশ্যে সরকার বিরোধী বক্তব্য দিয়ে আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়ার আহ্বান জানালে উপ¯ি’ত মুসুলিদের তীব্র বাধার মুখে সাজ্জাদ বক্তব্য বন্ধ করতে বাধ্য হয়।

জানা যায়, গত জুম্মার দিন দিনাজপুর জেলা ও দিনাজপুর ৬ আসনের অন্তর্গত ৪টি উপজেলা বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, হাকিমপুর ও ঘোড়াঘাটের জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা ঘোড়াঘাট উপজেলার ২৫টি মসজিদকে টার্গেট করে ইসলাম রক্ষার নামে যুদ্ধাপরাধীদের চলমান বিচার প্রক্রিয়াকে বানচাল করার জন্য সরকার বিরোধী কর্মকান্ডের অংশ হিসেবে বক্তব্য রাখেন। যেসব মসজিদে বক্তব্য রাখা হয় সেগুলি হচ্ছে ঘোড়াঘাট নয়াপাড়া আজগরনগর মসজিদ, নুরজাহানপুর, ওসমানপুর উপজেলা জামে মসজিদ, সুরা মসজিদ, ডুগডুগি মসজিদ, পুরইল, পালশা, ভাবছালা, রানীগঞ্জ আহলে হাদিস মসজিদ, কুলানন্দপুর, সোনারপাড়া, কাঠালবাড়ী, মারুপাড়া, রামপাড়া, ভেলামাড়ী, ভরনাপাড়া, চাঁদপাড়া, সাতপাড়া, কলাবাড়ী, আমড়া, রুপসীপাড়া, চেংগ্রাম এবং রামেশ্বরপুর জামে মসজিদ।

এব্যাপারে ঘোড়াঘাট থানার অফিসার্স ইনচার্জ এবিএম জাহিদুল ইসলাম বলেন, জামায়াতের মসজিদে মসজিদে সরকার বিরোধী কর্মকান্ডের আগাম কোন খবর তিনি জানতেন না। তবে ঘটনার পর এব্যাপারে জানতে পারে।

জেলা জামায়াতের আমীর মোঃ আনোয়ারুল ইসলামের আজ মঙ্গলবার নবাবগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে বৈঠকের কর্মসূচী ছিল। জানা যায়, আগামী শুক্রবার তার নেতৃত্বে নবাবগঞ্জ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ৪৫টি মসজিদে সরকার বিরোধী বক্তব্য দিয়ে মুসুলিদের আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়ার নির্ধারিত কর্মসূচী ছিল। পুলিশী সূত্রে জানা যায়, বিভিন্ন মামলায় জামিন পেয়ে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মী, অর্থের যোগানদাতা ও সমর্থকেরা মসজিদে মসজিদে যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রক্রিয়াকে বানচাল করার জন্য কর্মসূচী পালন করছে।