জাতীয় প্রধান খবর রাজনীতি রাজশাহী

মানুষের ঘরে ঘরে যান-যোগাযোগমন্ত্রী

Obaidবগুড়া অফিস ৩০ জুলাই : যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার ম্যাসেজ দিতে এসেছি আপনারা নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিন। ঘরে ঘরে গিয়ে ভাল ব্যবহার করে মানুষের মন জয় করুন। আজ মঙ্গলবার সাড়ে ১১ টায় বগুড়ার ধনুট উপজেলায় বথুয়াবাড়ি ব্রীজ উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে এক জনসভায় তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, বড় বড় প্রস্তুতি দিয়ে লাভ নেই ওয়াদা দিয়ে মানুষকে ধোকা দিতে পারব না। ৩ মাসে যা সম্ভব তা করবো। ৩ মাসে কী কাজ করতে পারবো তা জনগন জানে। তবে, ৩ মাসে ভালো আচারণ করতে পারবো।

মন্ত্রী বলেন, স্কুল কলেজের ছেলে মেয়েরা মন্ত্রীর জন্য দাড়িয়ে থাকবে তা হবে না। স্কুল কলেজ বন্ধ করে ছাত্র ছাত্রী নিয়ে আসার প্রয়োজন নেই। খবর পেয়েছি স্কুল কলেজ থেকে ছাত্র ছাত্রীদের নিয়ে আসার জন্য বলা হয়েছিল। খবর জানতে পেরে তা বন্ধ করে দিয়েছি।

তিনি আরো বলেন, সজীব ওয়াজেদ জয় সুশিক্ষিত মানুষ। তাকে দেখে বিএনপির নেতারা ভয় পায়। পৃথিবীর প্রায় দেশেই পরিবার পরিজন নির্বাচনী প্রচারনায় অংশ নেয়। জয় তার মাকে সাহায্য করতে এসেছে। তিনি দলের কেউ নয়। তিনি জনমত জরিপের তথ্য নিয়ে বলেছেন আগামীতে আওয়ামীলীগ নির্বাচনে জিতবে। এতে জয় কী ষড়যন্ত্র করেছে ? জনগণ ভোট দিবে, এটা জনগনের বিষয়। আমরা কী আশাবাদী হতে পারেনি না। আগামী নির্বাচনে সজিব ওয়াজেদ জয়কে ভয় পায়, তাই বিএনপি এ কথা বলেছে।

জনসভার আয়োজকদের উদ্দেশ্যে মন্ত্রী বলেন, এ ব্রীজ উদ্বোধন আমাকে খুশি করেছে। হোন্ডার সংবর্ধনা দিয়ে ক্রেস্ট দিয়ে আমাকে খুশি করা যাবে না। তিনি আরো বলেন, ভালো আচারণ করুন, ডিজিটাল গেট দেখে মানুষ ভোট দিবে না। মানুষ আমাদের কাজের বিচার বিশ্লেষণ করছে। এখন ভয়ে কিছু বলছে না। কারো মনে কষ্ট দিলেও এখন কিছু বলবে না, ভোটের মাধ্যমে জবাব দিবে।

জনসভায় উপস্থিত মহিলাদের উদ্দেশ্যে বলেন, জয়ের জন্মদিনে প্রধানমন্ত্রী তার ছেলের জন্য মোরগ পোলাও রান্না করেছে। বিএনপির এক নেতা বলেছে ঐ টাকা না কী পদ্মা সেতুর। মায়েরা আপনারা যদি আপনার সন্তÍানের জন্ম দিনে মোরগ পোলাও খাওয়ান তা নিয়ে যদি কেউ বিরুপ মন্তব্য করে, তাহলে কষ্ট লাগবে না আপনাদের মনে ? মায়ে ছেলেকে রান্না করে খাওয়ালো বিএনপির সেখানে ষড়যন্ত্র দেখছে।

মন্ত্রী বলেন, ব্রীজ উদ্¦োধনী আমার ছবি সম্বলিত পোস্টার, ডিজিটাল ব্যানার দেখতে চাইনি, গেট দেখতে চাইনি। মোটর সাইকেলে শোভাযাত্রা দেখতে চাইনি। মানুষ মুল্যায়ন করবে ভালো কাজ দেখে। মটর সাইকেল শোভাযাত্রা গেট দেখে মানুষ ভোট দেবে না। উন্নয়ন ও ভালো আচারন দেখে মানুষ ভোট দেবে। ১০ টি ভালো কাজ করলেও ২ টি খারাপের অচারনের জন্য সে ভালোকাজটি ম্লান হয়ে যাবে।

তিনি আরো বলেন, ৫ টি সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মাগুরা, ১৫ ফ্্েররুয়ারীর মত কোন হস্তক্ষেপ করেনি। নিরপেক্ষ নির্বাচন করেছি। অভিনন্দন জানিয়েছি। এটাই গণতন্ত্র। কিন্তু দেখছি বিএনপি মনে করছে আমারা ক্ষমতায় যাচ্ছি। আগামী নির্বাচনে বিজয়ী হচ্ছি। ৫ টি সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মতোই আগামী নির্বাচন হবে।

মন্ত্রী স্থানীয় সংসদ সদস্য ও আওয়ামীলীগনেতাদের উদ্দেশ্যে বলেন, আগমীতে জনসভা করলে কম সময় নিবেন। যার বক্তব্য মানুষ শুনতে আসবে তাকে বক্তব্য দেয়াবেন।

উপস্থিত কয়েক হাজার মাহিলাকে ঈঙ্গিত করে স্থানীয় নেতাদের উদ্দেশ্যে বলেন, মহিলাদের নিয়ে এসে এ ভাবে কষ্ট দিবেন না।শুধু বক্তৃতা দিয়ে ভোট হয় না। মঙ্গলবাররে ৩টি ব্রীজ ২৭ মিনিটে উদ্বোধন করেছি। ১ টা ব্রীজ উদ্বোন করতে ২ ঘন্টা সময় লাগল। এসময়ে আরো অনেকগুলো রাস্তা দেখা যেত। মন্ত্রী আসার কারণে ঠিকাদার ও ইঞ্জিনিয়ারা সজাগ হতো দ্রুত কাজ হতো।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, বিশেষ অতিথি স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও শেরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মজিবুর রহমান মজনু। সভাপতিত্ব করেন, ধুনট সদর ইউনিয়ন সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মুন্টু। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ধুনট উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ সভাপতি,টিআইএম নুরুন্নবী তারিক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকন, শেরপুর উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব আম্বিয়া প্রমুখ।