অপরাধ ঢাকা

টুঙ্গিপাড়ায় সংঘর্ষ বাড়ি-ঘর ভাংচুর

jaatগোপালগঞ্জ প্রতিনিধি:গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় দু’দল গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে অন্ততঃ ২৫ জন আহত হয়েছে। এ সময় বেশ কয়েকটি বাড়ি-ঘর ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষ ঠেকাতে পুলিশ ১১ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিতে সেখান থেকে পুলিশ ৫২ জনকে গ্রেফতার করেছে। মারাত্মক আহত ইমরুল সেখ(২৫), রহমত সেখ(৩০), ইসাহাক সেখ(৪০), মঞ্জু সেখ( ৮০), পলাশ বিশ্বাস(২৫)কে গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যান্যদেরকে বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।সোমবার গভীর রাত পর্যন্ত থেমে থেমে চলে এ সংঘর্ষের ঘটনা। টুঙ্গিপাড়ার বর্নি গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয় সন্ধ্যার পর থেকে। আর তা নিয়ন্ত্রনে নিতে পুলিশকে অপেক্ষা করতে হয় রাত ২টা পর্যন্ত। মাঠে নামাতে হয় অতিরিক্ত পুলিশ।জানাগেছে, বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পর থেকেই বর্নি ইউনিয়নের বিজয়ী চেয়ারম্যান খালিদ জমাদ্দার ও পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী সাজেদুর রহমান খান মন্টুর সমর্থকরা স্পস্টতঃ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়। সেই থেকে দুই গ্রুপের সমর্থকরা কারনে অকারনে বিভিন্ন সময়ে বিবাদে জড়িয়ে পড়ে। একাধিকবার সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটে। সম্প্রতি বর্নি স্কুল নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আরো উত্তোপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। সোমবার সন্ধ্যায় ছোট ছেলেদের মোবাইল ভেঙ্গে ফেলানোকে কেন্দ্র করে প্রথমে ঝগড়া-ঝাটি এবং এক পর্যায়ে তা সংঘর্ষের রুপ নিয়ে ইউনিয়ন ব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে। এসময় কয়েকটি বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। সন্ধ্যার পর পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দিলেও রাত ১০ টার দিকে তা আবারো বড় আকার ধারন করে। দুই গ্রুপই দেশিও অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া এবং সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সংঘর্ষ চলে রাত ২ টা পর্যন্ত। রাতের অন্ধকারে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিতে পুলিশকে ব্যাপক বেগ পেতে হয়। জেলা সদর থেকে নেয়া হয় অতিরিক্ত পুলিশ। এলাকায় সৃস্টি হয় নৈরাজ্য। সারারাত সেখানকার মানুষের কেটেছে ভীতিকর অবস্থার মধ্য দিয়ে।টুঙ্গিপাড়া থানার ওসি(তদন্ত) নূর হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, রাত ২ টার দিকে তারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিতে সক্ষম হন। টুঙ্গিপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাবিবুল্লা সরকার জানান, সেখান থেকে তারা ৫২জনকে গ্রেফতার করেছেন। বর্তমানে সেখানে অতিরক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পরিস্থিতি এখন শান্ত। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি। মামলা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানিয়েছেন।