প্রধান খবর রংপুর

৩য় বারের মত আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

24842_bইকবাল হোসেন, রংপুর অফিস:রংপুরের পুত্রবধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর সরকারের আমলে তৃতীয় বারের মত আগামীকাল বুধবার শ্বশুরবাড়ি এবং নির্বাচনী এলাকা রংপুরের পীরগঞ্জ আসছেন। প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে রংপুরের পীরগঞ্জ আনন্দের বন্যা বইছে। ওইদিন তিনি পীরগঞ্জে বেশ কয়েকটি স্থাপনার ভিত্তি স্থাপন এবং জনসভায় ভাষন দেবেন। এ সফরে প্রধানমন্ত্রীর কাছে রংপুরবাসির দাবি গ্যাস সরবরাহের ।

জেলা প্রশাসক ফরিদ আহাম্ম্দ জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার হেলিকপ্টার যোগে পীরগঞ্জের ফতেহপুরে শ্বশুরবাড়িতে নামবেন। এরপর তিনি স্বামী বিশিষ্ট পরমানু বিজ্ঞানী ড. ওয়াজেদ মিয়ার কবর জিয়ারত করবেন। এরপর তিনি পীরগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জনসভায় যোগ দেবেন। সেখানে তিনি রংপুর বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়, রংপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, নগরীর আলমনগর এলাকায় টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট, সার্কিট হাউস, পীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ, মেরিন একাডেমি, ডাক বাংলোর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন এবং ড. ওয়াজেদ মিয়া সেতুর উদ্বোধন করবেন।

মহাজোট সরকারের আমলে রংপুরে প্রথম সফরে জিলা স্কুল মাঠের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, এ সরকার ক্ষমতায় আসার পরপরই রংপুরকে বিভাগ করার প্রতিশ্র“তি পূরণ করেছে। রংপুরের সার্বিক উন্নয়নে তারা কাজ করে যাচ্ছেন। এখানে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ ব্যাংকের আঞ্চলিক অফিস করা হয়েছে। এ সময় বিভাগীয় শহর হিসেবে রংপুরকে সিটি করপোরেশনে উন্নীত করণ, মেট্রোপলিটন পুলিশ গঠন, আন্তঃনগর ট্রেন চালুসহ রেল যোগোযোগ সম্প্রসারণ, কৃষিভিত্তিক শিল্প স্থাপন, স্টেডিয়ামের আধুনিকায়ন, সুইমিং পুল ও মহিলা স্টেডিয়াম নির্মাণ, সৈয়দপুর বিমানবন্দর ও রেলওয়ে কারখানার আধুনিকায়ন, গাইবান্ধার বালাসী ঘাট সেতু নির্মাণ এবং রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওপেন হার্ট সার্জারি ও বার্ন ইউনিট খোলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তার সরকারের সময় শেষ হলেও এখনও রংপুরে মেট্রোপলিটন পুলিশ, রেল যোগোযোগ সম্প্রসারণ, কৃষিভিত্তিক শিল্প স্থাপন, স্টেডিয়ামের আধুনিকায়ন, সুইমিং পুল ও মহিলা স্টেডিয়াম নির্মাণ, গাইবান্ধার বালাসী ঘাট সেতু নির্মাণের কাজ শুরু হয়নি। এসব বিষয় ছাড়াও রংপুরে গ্যাস এবং বিজ্ঞানও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিষয় মহাজোট সরকারের আমলে তিনি রংপুরের মানুষকে সুসংবাদ দিবেন বলে উন্নয়নের স্বপ্ন দেখা এ অঞ্চলের মানুষ আশা করছেন।

ব্যবসায়ী রোস্তম মিয়া, কাবেরী চৌধুরি, শিক্ষক সিদ্দিক হোসেন জানান, অবহেলিত রংপুরের উন্নয়নে গ্যাস সরবরাহের ঘোষণা দেবেন, প্রধানমন্ত্রীর কাছে তারা এমনটাই আশা করেন।

২০১১ সালের জানুয়ারী মাসে রংপুর জিলা স্কুুল মাঠের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরসঙ্গি ছিলেন মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এবং তার স্ত্রী রংপুর সদর আসনের সাংসদ বেগম রওশন এরশাদ। জনসভায় এরশাদ রংপুরের উন্নয়ন নিয়ে বক্তব্য রাখেন। রংপুরের পুত্রবধূ হিসেবে এ অঞ্চলের উন্নয়নে ভূমিকা রাখার জন্য এরশাদের দাবির জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, এ অঞ্চলের মানুষের মূল দাবি গ্যাস। দেশে এখনও গ্যাসের ঘাটতি রয়েছে। উৎপাদন বাড়ানোর মাধ্যমে এই ঘাটতি পূরণে সরকার চেষ্টা চালাচ্ছে। যখনই গ্যাস পাওয়া যাবে, তখনই রংপুরের শিল্প-কারখানার জন্য গ্যাস সরবরাহের পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

রংপুরে গ্যাস সংযোগ এবং রংপুরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিষয়টি স্থাপনের জোড় দাবী উঠেছে। রংপুরের মানুষ মনে করেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রংপুরের পুত্রবধু, তিনিই রংপুরের উন্নয়নের দায়িত্ব নিয়েছেন। সেদিক থেকে তার সরকারের আমলে রংপুরে গ্যাস সংযোগ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়টি বাস্তবায়নের জন্য তিনি ঘোষনা দিবেন এমনটাই আশা করছেন এ অঞ্চলের মানুষ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফর সঙ্গী হিসেবে পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় ও কন্যা পুতুলসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও তাঁর সাথে থাকবেন বলে সুত্রটি জানায়।