জাতীয় ঢাকা

আগামী নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীর সুযোগ থাকছে না

Pic-1020130723063830হটনিউজ২৪বিডি.কম,নিজস্ব প্রতিবেদক,ঢাকা: নির্বাচন কমিশনার মো. শাহনেওয়াজ জানিয়েছেন, ‘দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষায় বিদ্রোহী প্রার্থী থাকার সুযোগ বন্ধ করে দিচ্ছে নির্বাচন কমিশন।
গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ (আরপিও) সংশোধনে কমিশনের প্রস্তাবে এটি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এ প্রস্তাব অনুসারে আরপিও সংশোধিত হলে কোনো সংসদীয় আসনে এক দল থেকে শুধু একজন প্রার্থী দলীয় মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন। সোমবার দুপুরে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।
তিনি বলেন, আরপিওতে আমরা বিধান করছি, কোনো দলের পক্ষ থেকে একাধিক প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন না, যাতে করে দলের শৃঙ্খলা বজায় থাকে।
তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে যে কেউ মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন।’ এ ব্যাপারে ইসির সঙ্গে সব রাজনৈতিক দল একমত বলে দাবি করেন তিনি।
জাতীয় নির্বাচনের প্রচারণার পোস্টারে শুধু প্রার্থীর ছবি থাকবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বিলবোর্ড, ব্যানার ও ফেস্টুনের নির্দিষ্ট একটা মাপ থাকবে। রাস্তা বন্ধ করে কোনো পথসভা করা যাবে না এবং পথসভায় শুধু হ্যান্ডমাইক ব্যবহারের আইন থাকছে।’
স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয়ভাবে প্রচারণা চালানোর ব্যাপারে শাহনেওয়াজ বলেন, ‘নির্দলীয় নির্বাচনে রাজনৈতিক আবরণ আমাদের জন্য অস্বস্তিকর। এ ব্যাপারে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়কে উদ্যোগ নিতে হবে।’
জাতীয় নির্বাচনের পর পর উপজেলা নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘যেকোনো বিষয়ে পূর্বপ্রস্তুতি ভালো। আমরা উপজেলা নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছি। কারণ জাতীয় নির্বাচনের পর বেশি সময় আমাদের হাতে থাকবে না।’
নতুন নিবন্ধন প্রত্যাশী একটি দল সম্পর্কে বিএনপির অভিযোগের ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘যেকোনো দল নিবন্ধনের আবেদন করতে পারে।
তাদের দেয়া তথ্যগুলো আমরা প্রথমে যাচাই করি। মাঠপর্যায়ে চূড়ান্ত যাচাই শেষে গণবিজ্ঞপ্তি দেব। যদি কোনো দল বা ব্যক্তির আপত্তি থাকে, তাহলে কমিশনে জানালে আমরা তা গ্রহণ করব।’
বিএনপির ধানের শীষের অনুরূপ গমের শীষ প্রতীক বরাদ্দ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘প্রতীকের ব্যাপারে তাদের আপত্তি আমরা যাচাই করে দেখব।
যদি কোনো প্রতীকে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়, তাহলে আমরা তা হতে দেব না। কারণ আমাদের প্রতিটা কাজ আইনসম্মতভাবে সম্পন্ন হবে। তবে কোনো দলের রাজনৈতিক বক্তব্যের ব্যাপারে আমাদের কোনো মন্তব্য নেই।