ঢাকা প্রযুক্তি

আরেকটি ফাইবার অপটিক কেবলে যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ

Hisped-0220130722095118হটনিউজ২৪বিডি.কম,প্রযুক্তি প্রতিবেদক,ঢাকা: গ্রাহকদের উচ্চগতির ইন্টারনেট সেবা দিতে শিগগিরই আরেকটি আন্তর্জাতিক ফাইবার অপটিক কেবলে যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ। এই উদ্যোগ ভারতি এয়ারটেলের।

এয়োরটেলের শীর্ষ এক কর্মকর্তার উদ্ধৃতি দিয়ে সোমবার খবর দিয়েছে ভারতের সংবাদ মাধ্যম ইকোনমিক টাইমস (ইটি)।

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সংযুক্ত একটি টেরিস্ট্রিয়াল ফাইবার-অপটিক কেবলে বড় ধরনের অর্থ বিনিয়োগ করেছে ভারতি এয়ারটেল।
প্রক্রিয়াটির সঙ্গে সরাসরি যুক্ত এক কর্মকর্তার উদ্ধৃতি দিয়ে ইকোনমিক টাইমস জানায়, আসছে সেপ্টেম্বরের শুরুতে বাংলাদেশে তৃতীয় প্রজন্মের (থ্রিজি) মোবাইল নেটওয়ার্কের নিলাম হবে। এতে এয়ারটেলও অংশ নিচ্ছে। ফলে এটা স্পষ্ট যে, ভারতি এয়ারটেল বাংলাদেশকে নতুন ফাইবার-অপটিক কেবলে সংযুক্ত করতে যাচ্ছে।

ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বাংলাদেশে থ্রিজি সেবা চালু হওয়ার পর ইন্টারনেটে ব্যান্ডউইথের চাহিদা বেড়ে যাবে। ইউজারদের জন্য পর্যাপ্ত ব্যান্ডউইথ নিশ্চিত করতেই নতুন ফাইবার-অপটিক কেবলে বাংলাদেশকে যুক্ত করতে চাইছে কোম্পানিটি।

বর্তমানে বাংলাদেশ একটি মাত্র আন্তর্জাতিক ফাইবার-অপটিক কেবলের সঙ্গে যুক্ত। এই একটি কেবলে কোনো সমস্যা দেখা দিলেই আর কোনো বিকল্প থাকেনা। ফলে দেশে ইন্টারনেটের গতি এবং আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে যোগাযোগ ব্যাহত হয় মারাত্মকভাবে।

আর এক্ষেত্রে দেশের তিন কোটির বেশি ইন্টারনেট ব্যবহারকারীকে নিরবচ্ছিন্ন ইন্টারনেট সেবা দিতে বাংলাদেশকে বিকল্প স্যাটেলাইট ভিত্তিক ইন্টারনেট কানেকশনে নির্ভর করতে হয়। যা খুবই ব্যয়বহুল।

ভারতের মতো বাংলাদেশের টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনও (বিটিআরসি) নিলামের মাধ্যমে মোবাইল কোম্পানিগুলোকে থ্রিজি সেবা চালুর জন্য ২ হাজার ১০০ মেগাহার্জ ব্যান্ডের মাত্র ৫ মেগাহার্জ তরঙ্গ বরাদ্দ দেবে।

এই টেলিকম কোম্পানিটি ২০০৭ সালে ওয়ারিদ টেলিকম নামে বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু করে।
২০১০ সালে ভারতি এয়ারটেল ওয়ারিদ টেলিকমের ৭০ শতাংশ শেয়ার কিনে নিলে কোম্পানিটি এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেড নাম ধারণ করে। একই বছরের ডিসেম্বরে তা এয়ারটেল নামে সেবা দিতে শুরু করে।