খেলা

সিরিজে এগিয়ে গেল পাকিস্তান

7খেলাধূলা : ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের চতুর্থ ম্যাচে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ছয় উইকেটের জয়ে সিরিজে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে গেছে পাকিস্তান। 
সেন্ট লুসিয়ায় মুদ্রাইনক্ষেপে জয়ী হয়ে পাকিস্তানি অধিনায়ক মিসবাহ উল হক স্বাগতিক দলের হাতে ব্যাট তুলে দিলে মারলন স্যামুয়েলসের ঝড়ো সেঞ্চুরির সঙ্গে জনসন চার্লসের ৩২, ক্রিস গেইলের ৩০ এবং লেন্ডল সিমন্সের ৪৬ রানের ওপর ভর করে ক্যারিবিয়ান দল স্কোরবোর্ডে লড়াই করার মতো ২৬১ রানের সংগ্রহ জমা করে। বৃষ্টির কারণে এক ওভার কমে আসা খেলায় ৪৯ ওভার শেষ করতে স্বাগতিক দলের পতন ঘটে সাতটি উইকেটের।
পাকিস্তানের মোহাম্মদ ইরফান দুটো এবং জুনায়েদ খান, ওয়াহাব রিয়াজ, সাঈদ আজমল ও শহিদ আফ্রিদি একটি করে উইকেটের দেখা পান। চলতি সিরিজে ব্যর্থতার প্রতিমূর্তি ক্যারিবিয়ান রান মেশিন ক্রিস গেইলকে ব্যাটিং অর্ডারের ওপেনিং থেকে পাঁচ নম্বরে নামিয়ে দিয়েও সাফল্য পাননি ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান থিংক ট্যাংক। তার সংগ্রহ ছিল মাত্র ৩০ রান।
জয়ের জন্য ২৬২ রানের লক্ষ্যটা পাকিস্তানি বর্তমান ব্যাটিং লাইন আপের জন্য কাগজে কলমে দুরূহই মনে হচ্ছিল। তবে বৃষ্টির কারণে ডাকওয়ার্থ – রুইস মেথডে পাকিস্তানের টার্গেট দাঁড়ায় ৩১ ওভারে ১৮৯ রান। মিসবাহ উল হকের ঝড়ো গতির অপরাজিত হাফ সেঞ্চুরির সঙ্গে মোহাম্মদ হাফিজ একপ্রান্ত আগলে রেখে ধীর অথচ সময়োপযোগী হাফ সেঞ্চুরির ইনিংস খেললে ছয় বল হাতে রেখেই ছয় উইকেটের জয় পায় পাকিস্তান। মোহাম্মদ হাফিজ পাঁচ বাউন্ডারি এবং দুই ছক্কায় ৫৯ রানে আউট হয়ে গেলেও তিন বাউন্ডারি এবং এক ছক্কায় ৫৩ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন অধিনায়ক মিসবাহ উল হক।
ওয়েস্ট ইন্ডিজের মারলন স্যামুয়েলস তার ১০৪ বলে ৯ বাউন্ডারি এবং চার ছক্কায় খেলা ১০৬ রানের ইনিংসটার জন্য পেয়েছেন ম্যাচসেরার পুরস্কার।