রাজশাহী শিক্ষাঙ্গন

প্রধান শিক্ষককে অপসারণের দাবীতে এলাকাবাসীর লাঠি মিছিল

NATORE-20.07.13-1 (1)মোঃ মাহফুজ আলম মুনী, নাটোর থেকে:নাটোরের বড়াইগ্রামে একজন প্রধান শিক্ষকের স্বেচ্ছাচারিতা সহ অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে তার অপসারণের দাবীতে আন্দোলনে নেমেছে এলাকাবাসী। তার বিরুদ্ধে জেলা ও উপজেলা শিক্ষা অফিসে লিখিত অভিযোগ করাসহ গত তিনদিন ধরে লাগাতার বিক্ষোভ মিছিল করছে। এলাকাবাসী জানান, বড়াইগ্রাম উপজেলার দ্বারিখৈর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ সোলায়মান আলীর বিরুদ্ধে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ২৮ হাজার টাকার অনিয়ম সহ বিভিন্ন ফান্ডের টাকা আতœসাৎ, অফিস সময়ে ক্লাশ না নিয়ে বাজারে বসে আড্ডা দেয়া, বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র বাড়িতে নিয়ে যাওয়া, গোপনে ম্যানেজিং কমিটি গঠণের চেষ্টা, শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীদের সাথে অশোভন আচরণ, চাকুরী বিধি লঙ্ঘন করে সরাসরি রাজনৈতিক কর্মকান্ডে অংশ নেয়ার মত বিভিন্ন স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ রয়েছে। স্থানীয় ও রাজনৈতিক ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় এর আগে বিদ্যালয়ের পর পর তিনজন প্রধান শিক্ষককে তিনি নানাভাবে নাজেহাল করে এ বিদ্যালয় থেকে সরে যেতে বাধ্য করেছেন। পরে তিনি নিজেই ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব নিয়ে নানা অপকর্ম করে চলেছেন। এসব ব্যাপারে তাকে বারবার সতর্ক করা হলেও তাতে কোন সুফল পাওয়া যায়নি। তার অনিয়ম-দুর্নীতি ও দুর্ব্যবহারের কারণে স্কুলের শিক্ষার পরিবেশ ক্রমশঃ নিম্নমুখী হচ্ছে। এতে অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের এই স্কুল থেকে অন্যত্র নিয়ে যাওয়ার কথা ভাবছেন। এসব কারণে তার অপসারণের দাবীতে এলাকাবাসী বুধবার থেকে লাগাতার লাঠি মিছিল সহ আন্দোলন করে চলেছেন। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সোলায়মান আলী তার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন একটি মহল তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে। স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মিজানুর রহমান বলেন, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে এলাকাবাসী নানা অভিযোগ করেছেন। মিছিল-মিটিং করে আন্দোলন করায় এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। তাই স্কুলের স্বার্থে তাকে দ্রুত অন্য কোথাও বদলী করে দেয়ার জন্য শিক্ষা অফিসারের সাথে কথা বলেছি। বড়াইগ্রাম উপজেলা শিক্ষা অফিসার সাইফুল ইসলাম লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর বিষয়টি স্বীকার করে বলেছেন, এসব অভিযোগের ব্যাপারে তদন্ত করায় কিছু অভিযোগের সত্যতাও মিলেছে। এলাকাবাসী তার বিপক্ষে চলে যাওয়ায় উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে তাকে অন্যত্র বদলীর ব্যবস্থা করা হবে।