কৃষি রাজশাহী

বৃষ্টির অভাবে আমন নিয়ে বিপাকে চাষীরা

Bogra-water-sm20130718071439হটনিউজটোয়েন্টিফোরবিডি.কম,বগুড়া অফিস: শ্রাবণ মাসের দুইদিন পেরিয়ে গেলেও বৃষ্টি না থাকায় রোপা আমন চাষ নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার কৃষকেরা।

এ সময়টায় ক্ষেতে হালচাষ শুরু করার কথা থাকলেও বৃষ্টির কোনো আলামত না থাকায় কৃষকরা বাধ্য হয়ে ক্ষেতে পানি দেওয়ার জন্য গভীর ও অগভীর নলকূপ বসিয়ে পানি সেচের ব্যবস্থা করছেন। এতে প্রাকৃতিক শুদ্ধতার অভাব যেমন তৈরি হয়েছে, তেমনি বিদ্যুৎ ব্যবস্থায় নতুন করে দেখা দিতে পারে ঘাটতি।

বৃহস্পতিবার উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের কৃষকদের সঙ্গে আলাপকালে হটনিউজকে তারা জানান, মাঠ বা জমিতে কোনো পানি নেই। অল্প কিছু নিচু জমিতে পানি জমে থাকায় সেখানে কৃষকরা আমন চারা রোপণ করা শুরু করেছেন। প্রান্তিক কৃষক আকাশের পানির আশায় থেকে পানি না পেয়ে জমিতে ‘ছেনি-যাত’ দিয়ে পুকুর বা খাল থেকে পানি সেচের ব্যবস্থা করেছেন। তবে অধিকাংশ জমিতে গভীর ও অগভীর নলকূপ বসিয়ে পুরোদমে সেচের ব্যবস্থা শুরু করেছেন কৃষকরা।

উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের কৃষক মতিন তালুকদার, কামারগ্রামের মাহতাব আলী ও পাইকপাড়া গ্রামের রইচউদ্দিনসহ অন্যারা হটনিউজকে বলেন, বৃষ্টির পানির জন্য অনেক অপেক্ষা করলাম। অবশেষে বাধ্য হয়ে ডিপ টিউবওয়েল দিয়ে পানি সেচের ব্যবস্থা করেছি।

দুপচাঁচিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তাহেরুল ইসলাম জানান, এবার গোটা উপজেলায় ১২ হাজার ৩৫০ হেক্টর জমিতে উফসি (উচ্চ ফলন) জাতের ধান এবং ১৫০ হেক্টর জমিতে স্থানীয় জাতের ধান রোপণ করার জন্য কৃষকেরা প্রস্তুতি নিয়েছেন। এজন্য ৭৬০ হেক্টর উঁচু জমিতে বীজতলা তৈরি করা হয়েছে। আষাঢ় মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে সব জমি তৈরির কাজ শুরু হবে।

তিনি আরো জানান, শ্রাবণের প্রথম সপ্তাহে থেকে রোপা আমন ধান লাগানো শুরু হওয়ার কথা। বৃষ্টি না হওয়ায় আমন ধান রোপন পিছিয়ে পড়তে পারে। তাই রোপা আমন চাষ করার জন্য কৃত্রিম সেচ ব্যবস্থা চালুর জন্য কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

দুপচাঁচিয়া উপজেলা বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের আবাসিক প্রকৌশলী (আরই) রেজাউল করিম তালুকদার হটনিউজকে জানান, বৃষ্টি না হওয়ার কারণে বিভিন্ন মাঠ বা জমিতে শ্যালো ও ডিপটিউবওয়েল (গভীর নলকূপ) চালু করার জন্য বিদ্যুতের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।