জাতীয় ঢাকা

বিএনপি নেতা খোকনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

kHOKON-0120130718095710হটনিউজ২৪বিডি.কম,নিজস্ব প্রতিবেদক,ঢাকা: একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের ঘটনায় ফরিদপুরের বিএনপি নেতা জাহিদ হোসেন খোকন ওরফে খোকন রাজাকারের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

বিচারপতি ফজলে কবীরের নেতৃত্বাধীন ট্রাইব্যুনাল-১ বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে এই পরোয়ানা জারি করেন।

ফরিদপুরের নগরকান্দা পৌরসভার সাবেক মেয়র খোকন বর্তমানে পলাতক রয়েছেন। তার বিরুদ্ধে গত ৮ জুন তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়।

তদন্ত সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়, একাত্তর সালে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সহযোগী রাজাকার হিসেবে জাহিদ হোসেন খোকন লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, আটক, নির্যাতন, ধর্মান্তরকরণ, ধর্ষণ, হত্যাসহ বিভিন্ন মানবতাবিরোধী অপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তিনি বৃহত্তর ফরিদপুর জেলার নগরকান্দায় এসব অপরাধ সংঘটিত করেন। বর্তমানে তিনি পলাতক রয়েছেন।

তার পরিচয়ে বলা হয়েছে, ১৯৭০ সালের নির্বাচনে জামায়াতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট থেকে জাহিদ হোসেন জামায়াতের প্রার্থীর প্রচারণায় অংশ নেন। পরে তিনি বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হন। সর্বশেষ নগরকান্দা বিএনপির সহ সভাপতির পদে থেকে নগরকান্দা পৌরসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করে পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হন। তবে মেয়র হিসেবে শপথ নেওয়ার পর থেকে তিনি পলাতক। তিনি এলাকায় খোকন রাজাকার নামে পরিচিত।

খোকনের মামলায় ২০১২ সালের ১৬ এপ্রিল শুরু হয়ে গত ২৮ মে শেষ হয় তদন্ত। তদন্তকালে এ মামলায় ৭৮ জনের বেশি লোকের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৫০ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।

জাহিদ হোসেন ১৯৭১ সালের ২১ এপ্রিল থেকে ৩০ জুলাই পর্যন্ত বিভিন্ন মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটিত করেন। জাহিদ ফরিদপুরে আরেক মানবতাবিরোধী অপরাধী ফাঁসির দণ্ডাদেশ প্রাপ্ত আবুল কালাম আজাদ বাচ্চু রাজাকারের ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন।