আন্তর্জাতিক

ড্রোন হামলায় শীর্ষ আইএস নেতা নিহত

untitled-4_230548

যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় নিহত হয়েছেন মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট_ আইএসের খোরাসান তথা আফগানিস্তান-পাকিস্তান শাখার প্রধান হাফিজ সাঈদ খান। শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন ও আফগান নিরাপত্তা কর্মকর্তারা আনুষ্ঠানিকভাবে তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন। তবে এ বিষয়ে আইএসের পক্ষ থেকে এখনও কোনো মন্তব্য করা হয়নি। সূত্র :বিবিসি ও আলজাজিরা।

পাকিস্তানে আফগানিস্তানের রাষ্ট্রদূত হজরত ওমর জাখিলওয়াল জানান, গত ২৬ জুলাই আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় নানগারহার প্রদেশের কোট জেলায় যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় বেশ কয়েকজন সঙ্গীসহ হাফিজ সাঈদ নিহত হন। আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে গত ২৩ জুলাই এক শিয়া সমাবেশে আত্মঘাতী হামলায় অন্তত ৮০ জন নিহত ও দুই শতাধিক মানুষ আহতের ঘটনার পর কোট জেলায় এই ড্রোন হামলা চালানো হয়। সে সময় আফগান গোয়েন্দা সংস্থা ওই অভিযানে আইএসের ১২০ জঙ্গি নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছিল। কিন্তু তখন তারা নানগারহারের ঠিক কোথায় হামলা চালানো হয়েছে বা নিহতের তালিকায় হাফিজ সাঈদ খানের নামও উল্লেখ করেনি।

শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রও নিশ্চিত করেছে, গত ২৬ জুলাই নানগারহার প্রদেশের আচিনে ড্রোন হামলায় আইএসের খোরাসানপ্রধান হাফিজ সাঈদ খান নিহত হয়েছেন। পেন্টাগন জানায়, ওই হামলার লক্ষ্যই ছিলেন হাফিজ সাঈদ খান। পেন্টাগনের মুখপাত্র গর্ডন প্রোব্রিজ বলেন, আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা ও যৌথবাহিনীর ওপর বেশকিছু হামলার নেতৃত্ব দিয়েছে হাফিজ সাঈদ খান। আইএসে যোগ দেওয়ার আগে হাফিজ সাঈদ এক সময় তালেবান কমান্ডার ছিলেন। তিনি আফগানিস্তানে বহু জঙ্গি হামলায় নেতৃত্ব দিয়েছেন।

শনিবার কাবুল থেকে আলজাজিরার সাংবাদিক জেনিফার গ্গ্নাস জানান, আফগানিস্তানে মার্কিন ও ন্যাটোর যৌথবাহিনীর কমান্ডার জেনারেল জন নিকোলসন জানিয়েছেন, আফগানিস্তানে এ পর্যন্ত ২৫ ভাগ আইএস জঙ্গি মার্কিন ড্রোন হামলাতেই প্রাণ হারিয়েছেন।

৬ পাকিস্তানি ও রুশ জিম্মিকে মুক্তি দিয়েছে তালেবান :আফগানিস্তানে হেলিকপ্টার দুর্ঘটনার শিকার হয়ে তালেবান জঙ্গিদের হাতে জিম্মি পাঁচ পাকিস্তানি ও এক রুশ নাগরিককে মুক্তি দিয়েছে জঙ্গিরা। বর্তমানে তারা সবাই পাকিস্তানি কর্মকর্তাদের হেফাজতে রয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন পাকিস্তানের কর্মকর্তারা।

এ বিষয়ে গতকাল শনিবার এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, গত ৪ আগস্ট আফগানিস্তানে পাঞ্জাব সরকারের একটি হেলিকপ্টার দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এ সময় তালেবানরা ওই ছয়জনকে অপহরণ করলেও এখন তাদের মুক্ত করে দিয়েছে। তাদের সবাইকে ইসলামাবাদ নিয়ে আসা হচ্ছে।