ঢাকা প্রধান খবর

জাতির প্রত্যাশা পূরণ হয়েছে

images (7)সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট হটনিউজটোয়েন্টিফোরবিডি.কম,ঢাকা: আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের বিরুদ্ধে দেওয়া আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায়ে জাতির প্রত্যাশা পূরণ হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ।

রায় পরবর্তী প্রতিক্রিয়ায় আইনমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির প্রত্যাশা অনুযায়ী আজকের বিচার সম্পন্ন হয়েছে, এছাড়া অন্যান্য বিচার চলছে এবং ইতোমধ্যেই বেশ কিছু রায় হয়েছে।এর মাধ্যমে সরকারের নির্বাচনী অঙ্গীকারও পূরণ হয়েছে।’

মুজাহিদের বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনালের রায় ঘোষণার পরপরই বুধবার সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন আইনমন্ত্রী।

আইনমন্ত্রী বলেন, “যখন গোলাম আযমের রায় হয়েছিল, তখন আমরা বলেছিলাম,‘এটি ছিল জনগণের প্রত্যাশা, সেই প্রত্যাশা পূরণ হলো রায়ের মধ্য দিয়ে।’ এখন ৪২ বছর পর হলেও মুজাহিদের যে রায়টি হয়েছে, তা ছিল জনগণের দাবি।”

ব্যারিস্টার শফিক বলেন, ‘জনগণের দাবি অনুযায়ী বিচার কাজ এগিয়ে চলেছে। আজকে মুজাহিদের বিচার সম্পন্ন হয়েছে। বিজ্ঞ ট্রাইব্যুনাল তথ্য উপাত্ত বিবেচনায় এনে মান বজায় রেখে বিচার কার্য সম্পন্ন করেছেন।’

এছাড়া বিচারের স্বচ্ছতা ও গ্রহণযোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন উত্থাপন করার কোনো সুযোগ নেই বলেও উল্লেখ করেন আইনমন্ত্রী।

বিচার প্রক্রিয়া প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আসামি পক্ষের আইনজীবীরা যথেষ্ট সুযোগ পেয়েছেন, তারা প্রসিকিউশনের পক্ষের সাক্ষীদের জেরা করার সুযোগ পেয়েছেন, আইনজীবীরা দীর্ঘ সময় পর্যন্ত তাদের আইনি লড়াই চালিয়েছেন। সব কিছু বিবেচনায় এনেই বিজ্ঞ ট্রাইব্যুনাল এই রায় দিয়েছেন।’

‘এই রায় নিয়ে দেশে বিদেশে কোন প্রশ্ন তোলার সুযোগ নেই’ উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘যারা মানবতা বিরোধী অপরাধ করেছিল, যারা মানুষের বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে দিয়েছিল, সেসব অপরাধীরাই এই বিচারের সম্মুখীন হয়েছে।’

আইনমন্ত্রী আরও বলেন, ‘যারা মানবতা বিরোধী অপরাধ করেছে, গণহত্যা করেছে, বুদ্ধিজীবী হত্যার সাথে যারা জড়িত, তারাই এই বিচারের সম্মুখীন হচ্ছেন, অন্য কোন কারণে নয়। যারা এ ধরনের অপরাধ করবে, তাদের বিচারের সম্মুখীন করা সরকারের দায়িত্ব। বর্তমান সরকার এ বিচারে বদ্ধ পরিকর এবং অত্যন্ত সুষ্ঠুভাবে এ বিচার কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং এখনও চলছে।’

ভবিষ্যতে তদন্ত কাজ পরিচালনা করে সুনির্দিষ্ট তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে অন্যান্য যারা বিচারের আওতায় আসবে তাদেরও বিচার করা হবে বলে এ সময় উল্লেখ করেন আইনমন্ত্রী।

এ ছাড়া এই বিচারে নির্বাহী বিভাগের হস্তক্ষেপের কোন অবকাশ নেই উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘ট্রাইব্যুনাল সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে বিচার কাজ পরিচালনা করছে।’

গোলাম আযমের রায় নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘রায়ে সন্তুষ্ট না হলে উভয় পক্ষেরই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার সুযোগ রয়েছে। গোলাম আযমের ‍ব্যাপারে প্রসিকিউশন টিম আছে, অ্যাটর্নি জেনারেল রয়েছেন, রায় পর্যালোচনা করে তারাই সিদ্ধান্ত নেবেন কি করতে হবে।’