আন্তর্জাতিক

ট্রেভন মামলার রায় নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে বিক্ষোভ

3আন্তর্জাতিক: ১৭ বছর বয়সী কৃষ্ণাঙ্গ ‘ট্রেভন এর জন্য ন্যায়বিচার’ এর দাবিতে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী রোববার যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান প্রধান শহরগুলোতে বিক্ষোভ-মিছিল করেছে। ফ্লোরিডায় নিরস্ত্র ট্রেভন মার্টিনকে হত্যা মামলায় বেকসুর খালাস পাওয়া শ্বেতাঙ্গ জর্জ জিমারম্যানের বিরুদ্ধে তারা বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে তারা।এ পরিস্থিতিতে সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।
ছয় নারী বিচারকের এক জুরি বোর্ড জিমারম্যানকে নির্দোষ আখ্যা দিয়ে মুক্তির রায় ঘোষণা করে। নাগরিক অধিকার আন্দোলনের নেতারা এই রায়ে নিন্দা প্রকাশ করেন এবং নিউ ইয়র্ক,বস্টন,স্যানর্ফ্যানসিসকো সহ অন্যান্য শহরে বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় নেমে আসে।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা গত ১৬ মাস যাবৎ মার্কিন নাগরিকদেরকে দুই মেরুতে নিয়ে যাওয়া এই মামলার প্রতিবাদে শান্তিপূর্ণ প্রতিক্রিয়া দেখানোর আহ্বান জানিয়েছেন। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বিক্ষোভকারীরা শান্ত থাকলেও নিউ ইয়র্কের মিছিলটি মাঝে মাঝে বিশৃঙ্খল হয়ে পড়ে।লস এ›েজলস এর প্রতিবাদকারীরা প্রধান একটি সড়ক অবরোধ করে রাখে।
ওবামা বলেন, আমার একটি ছেলে থাকলে সে দেখতে ট্রেভনের মতোই হতো। সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি আরো বলেন, আমরা আইন মেনে চলা জাতি আর জুরিরা তাদের মতই দিয়েছে।
মামালায় আসামীপক্ষের আইনজীবীরা তাদের যুক্তিতে বলেন,১৭ বছর বয়সী মার্টিন জিমারম্যানকে আক্রমণ করলে তিনি আত্মরক্ষার জন্য ওই কিশোরের উপর গুলি চালান।অন্যদিকে, সরকারী আইনজীবীরা বলেন,২৯ বছর বয়সী শ্বেতাঙ্গ এবং হি¯পানিক জিমারম্যান শুধুমাত্র কালো বলেই মার্টিনকে অন্যায়ভাবে অপরাধী বলে সন্দেহ করেছিলেন।
জিমারম্যান সন্দেহজনক এক ব্যক্তির ব্যাপারে জানানোর জন্য পুলিশকে ফোন করে এবং তারপর কোমর বন্ধনীতে থাকা গুলি ভর্তি কেল টেক ৯ মি মির একটি পিস্তল নিয়ে তার গাড়ি থেকে নেমে আসে। এরপর মার্টিন এর সঙ্গে সংঘর্ষের জেরে জিমারম্যান নাক ও মাথায় আঘাত পান। ওই রক্তাক্ত অবস্থায় তিনি মার্টিনকে গুলি করে তাকে হত্যা করেন।
অ্যানজেলা টোভার নামে ব্র“কলিনের ৩৩ বছর বয়সী এক নগর পরিকল্পনাবিদ বলেন, শুধুমাত্র গায়ের রং কালো হওয়ার কারণেই ট্রেভন চিহ্নিত হয়েছিল এবং এ কারণেই তাকে অকালে হত্যার শিকার হতে হয়।