জাতীয় ঢাকা

ক্যাম্পাসে ক্যাম্পাসে আন্দোলন, বিসিএসের ফল বিকেলে

DU-Saimon----31-bg20130714030355স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,হটনিউজটোয়েন্টিফোরবিডি.কম,ঢাকা: বিসিএসসহ সব ধরনের সরকারি চাকরির কোটা বাতিলের দাবিতে রোববার দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ, সমাবেশ, মানববন্ধন অব্যাহত রয়েছে। তবে এদিন সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘট আহবান করা হলেও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি) এবং আংশিকভাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া কোথাও ধর্মঘট পালন হচ্ছে না।
সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিল চেয়ে রিট হলেও রোববার বিকেলের মধ্যেই ৩৪তম বিসিএসের সংশোধিত ফল প্রকাশ হবে বলে হটনিউজকে জানান পিএসসির জনসংযোগ কর্মকর্তা মীর মোশাররফ হোসেন।
প্রথমবারের মত প্রিলিমিনারিতে কোটা বরাদ্দ রেথে গত ৮ জুলাই ৩৪তম বিসিএস’র ফল ঘোষণা করা হয়। এতে উত্তীর্ণ হন ১২ হাজার ৩৩ পরীক্ষার্থী। অনুত্তীর্ণরা ক্ষুব্ধ হয়ে কোটা বাতিল চেয়ে গত ৯ জুলাই রাজধানীর শাহবাগে অবরোধ কর্মসূচি পালন করে। আন্দোলন ছড়িয়ে যায় সারা দেশে। শনিবার সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘটের ডাক দেন আন্দোলনকারীরা। পাশাপাশি চলে কোটা রক্ষার আন্দোলন।
রোববার কোটা বাতিলের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস বিচ্ছিন্নভাবে চললেও কোনো কোনো বিভাগে ক্লাব বন্ধ আছে।
তবে কোটা প্রথা বাতিলের দাবিতে শিক্ষার্থীদের ডাকা ধর্মঘটে স্থবির হয়ে পড়েছে সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি)।
সকাল থেকে আন্দোলনকারীরা শাবিপ্রবির প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে দিয়ে ধর্মঘট শুরু করেছে।

ধর্মঘটের কারণে লোকপ্রশাসন বিভাগের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। এছাড়াও সব ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। কোনো শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে পারছেন না।
বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো বাস ক্যাম্পাস ছাড়েনি। সকালের দিকে একটি বাস ছাড়লেও মূল ফটকে শিক্ষার্থীদের নামিয়ে দেয় আন্দোলকারীরা।
কোটা বাতিলের দাবিতে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করতে থাকে। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থানরত পুলিশ ক্যাম্পাসের প্রধান ফটক তালা দিয়ে বন্ধ করে দেয়। এতে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করছেন।
শিক্ষার্থীরা জানান, কোটা বাতিল না হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চলবে। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ক্লাস ও পরীক্ষা স্বাভাবিক রয়েছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. তরিকুল হাসান শিক্ষার্থীদের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না করে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজার রাখার আহ্বান জানান।
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেও কোটা বিরোধী মিছিল চলছে। তবে ক্লাস-পরীক্ষা স্বাভাবিক রয়েছে।
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়েও কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে। সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের গোল চত্ত্বর এলাকা থেকে মিছিল বের করে বুদ্ধিজীবী চত্বরে মাববন্ধন পালন করে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। তবে শাটল ট্রেন চলাচল করছে। বিভিন্ন বিভাগে নির্ধারিত ক্লাস-পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অন্যান্য দিনের তুলনায় শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি তুলনামূলক কম।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর সিরাজ উদ-দৌল্লাহ হটনিউজকে বলেন,‘শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কারের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। তবে বিভিন্ন বিভাগে ক্লাস-পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।’

বিসিএসের ফলের পর থেকেই কোটা বিরোধী আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও রাবি, শাবি, জবিসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ বাধে।
১০ জুলাই পিএসসি প্রকাশিত ফল পুনর্বিবেচনার সিদ্ধান্ত নেয়। পুনর্মূল্যায়িত ফল প্রকাশ উপলক্ষে বেলা আড়াইটায় পিএসসি’র পূর্ণকমিশনের বৈঠক ডাকা হয়েছে। সেখানে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
এদিকে বিসিএস’র কোটা বাতিল চেয়ে রোববার হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করেছেন ৩৪তম বিসিএসে অংশ নেওয়া দুই পরীক্ষার্থী। আবেদনে ৩৪তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফলেও স্থগিতাদেশ চাওয়া হয়। আদালত শুনানির জন্য আবেদনটি সোমবার কার‌্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার নির্দেশ দেন।
রিট আবেদনে বাতিল চাওয়া ৫৬ শতাংশ কোটার মধ্যে রয়েছে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, ১০ শতাংশ নারী, ১০ শতাংশ জেলা, ৫ শতাংশ উপজাতি এবং ১ শতাংশ প্রতিবন্ধী।