খেলা

রোনালদিনিয়োর কাছে মেসির অনেক ঋণ

2খেলাধূলা ডেস্ক : এক সময় বার্সেলোনায় সতীর্থ ছিলেন দুজনে। এখন লিওনেল মেসি বার্সার প্রধান অস্ত্র হলেও রোনালদিনিয়োর ঠিকানা স্বদেশ ব্রাজিলের আতলেতিকো মিনেইরো। তবে বার্সার মূল দলে যোগ দেয়ার পর রোনালদিনিয়োর উপকারের কথা আজো ভুলতে পারেননি মেসি। সেজন্য সাবেক সতীর্থের কাছে ঋণও স্বীকার করেছেন তিনি। প্যারিস সেইন্ট জার্মেই বা পিএসজি থেকে রোনালদিনিয়ো বার্সায় যোগ দেন ২০০৩ সালে। তার পরের বছরই বার্সেলোনা ‘বি’ দল থেকে ‘টিন এজার’ মেসির জায়গা হয় ¯প্যানিশ পরাশক্তিদের মূল দলে। সে সময় রোনালদিনিয়োর সহৃদয় সাহায্য যে তার দলের সবার সঙ্গে মিশে যাওয়ার কাজটা অনেক সহজ করে দিয়েছিল, তা স্বীকার করতে দ্বিধা নেই মেসির।
‘বার্সা টিভি’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ প্রসঙ্গে টানা চার বারের ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলার বলেন, আমি সব সময় বলি, প্রথম যে দিন লকার রুমে (সাজঘর) প্রবেশ করেছিলাম, রোনালদিনিয়ো এবং অন্যান্য ব্রাজিলিয়ান যেমন ডেকো, সিলভিনিয়ো আর (থিয়াগো) মোত্তা আমাকে স্বাগত জানিয়েছিল। আমাকে অনেক কিছু দিয়েওছিল। তবে সবচেয়ে বেশি সাহায্য করেছিল রোনালদিনিয়ো। আমি তার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছিলাম, অনেক সাহায্য পেয়েছিলাম।
একজন টিনএজার হিসেবে (বার্সার) লকার রুমে প্রবেশ করা সহজ কাজ নয়। তবে রোনালদিনিয়ো আমার জন্য সব কিছু সহজ করে দিয়েছিল। আমি দারুণ সৌভাগ্যবান যে তার কাছাকাছি থেকে অনেক কিছু শেয়ার করতে পেরেছিলাম। আমি একটা কথাই বলতে পারি। তা হলো সে একজন অসাধারণ ব্যক্তি আর এটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।
পাঁচ বছরের বার্সেলোনা-জীবনে দুবার ¯প্যানিশ লা লিগা এবং একবার চ্যা¤িপয়ন্স লিগের শিরোপা জিতেছিলেন রোনালদিনিয়ো। তার ২০০৪ ও ০৫ সালে টানা দুবার ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার জয়ও নিউ ক্যা¤েপ থাকার সময়েই এসেছিল।
মেসির দৃঢ় বিশ্বাস, রোনালদিনিয়োর উপস্থিতি আমূল পাল্টে দিয়েছিল ব্যর্থতার বৃত্তে ঘুরপাক খেতে থাকা বার্সাকে। তিনি বলেন, এই ক্লাবকে পাল্টে দেয়ার পেছনে রোনালদিনিয়োর সবচেয়ে বড় অবদান। আমাদের ক্লাব দুঃসময়ের ভেতর দিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু সে আসার পর সব কিছু পাল্টে যায়।
(রোনালদিনিয়োর) প্রথম বছরে আমরা কোনো শিরোপা জিততে না পারলেও সে সমর্থকদের মন জয় করে নিয়েছিল। এরপর একে-একে শিরোপা আসতে শুরু করলো আর সে-ও সবাইকে আনন্দে ভাসিয়ে দিল। আমার বিশ্বাস, (রোনালদিনিয়োর) অবদানের জন্য বার্সার তার কাছে আজীবন কৃতজ্ঞ থাকা উচিৎ।