অপরাধ রাজশাহী

৫৬ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা

images (1)মোঃ মাহফুজ আলম মুনী, নাটোর থেকে:নাটোরের বাগাতিপাড়ায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সময় লুটপাট হওয়া বাড়ি ঘর দেখাতে গিয়ে পুলিশের সামনেই সন্ত্রাসী হামলায় এক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী লাকী খাতুন আহত হওয়ার ঘটনায় দায়ের করা দুটি মামলায় আদালত ৫৬ অভিযুক্তর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেছে। গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির পর বুধবার প্রধান অভিযুক্ত দুইজন মোঃ আব্দুল কুদদুস ও মোঃ ফেরদৌস আদালতে জামিন নিতে গেলে আদালত তাদের জামিন না মন্জুর করে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয়। এদিকে আসামীরা লাকীদের বাড়ির গাছ থেকে আম পাড়ার সময় বাধা দেয়ায় তাদের বিরুদ্ধে বাগাতিপাড়া থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। আসামী পক্ষের লোকজন বিভিন্ন সময় লাকীর পরিবারের লোকজনকে মামলা তুলে নিতে ভয় ভীতিী দেখাচ্ছে। বাগাতিপাড়া উপজেলার শালাইনগর গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের ছেলে আব্দুস সালাম ও তার বৈমাত্রেয় ভাই আব্দুল কুদ্দুসের মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে পাঁচ শতক জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। গত ১৬ এপ্রিল, মঙ্গলবার সকালে আব্দুস সালামকে প্রতিপক্ষের লোকজন ধরে বেঁধে রেখেছে এমন খবরে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। সংঘর্ষে আব্দুস সালাম পক্ষের সালাম, আব্দুর রহিম, আব্দুল করিম, আব্দুর রশিদ ও রবিউল ইসলাম আহত হয়। পরে সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে আব্দুল কুদ্দুস পক্ষের লোক আখ্যায়িত করে স্কুল শিক্ষক আব্দুল মোত্তালেব ওরফে জাহিদ মাষ্টার স্কুলে যাওয়ার পথে সালাম পক্ষের লোকজন তার উপর হামলা করে মারপিট করে এবং তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলের ক্ষতি করে। এ ঘটনায় আবারও নতুনভাবে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে কুদ্দুসের পক্ষের লোকজন সালাম, রহিম, করিম ও রশিদের বাড়ি-ঘরের দরজা-জানালা, বৈদ্যুতিক মিটার, টিউবয়েল, টিভি ভাংচুর করে। এছাড়াও ধান, গম, গম মাড়াই মেশিন, ছাগল, গরুসহ আসবাবপত্র লুট করে বলেও এ সব পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়। এ সময় সালাম, রহিম, করিম ও রশিদের বাড়ির লোকজন ভয়ে প্রতিবেশীদের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। জানতে পেরে পুলিশ সেসব বাড়িতে যায়। এ সময় রহিমের মেয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাবস্থাপনা বিষয়ের সম্মান দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী লাকী খাতুনকে তাদের লুটপাট ও ভাংচুর হওয়া বাড়ি ঘর দেখিয়ে দিতে বলে পুলিশ। এসময় লাকী পুলিশকে তার নিরাপত্তাহীনতার কথা বললে পুলিশ তাকে সাথে করে নিয়ে যায়। পুলিশের সাথে যাওয়ার সময় প্রতিপক্ষের সেকেন্দার, জেমস্ ও কয়েকজন মহিলা তাকে চুলের মুঠি ধরে রাস্তায় ফেলে লাঠি দিয়ে পেটায়। এক পর্যায়ে অনেক পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে পৌছে দেয়। লাকী অভিযোগ করেন, ঘটনার সময় তিনি পুলিশের কাছে বারবার নিরাপত্তা চেয়েও পাননি এমনকি পুলিশের সামনে তাকে বেধড়ক পেটালেও পুলিশ তখন কোন সহযোগিতা করেনি। এ ঘটনায় আহত আব্দুর রশীদকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং অন্যদের নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতাল ও বাগাতিপাড়ার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। স্কুল শিক্ষক আব্দুল মোতালেব জানান, তাকে মারার পিছনে লাকীর হাত থাকতে পারে বলে লোকজন লাকীকে মেরেছে। কয়েকজন পুলিশের সামনে একজন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে রাস্তায় ফেলে কিভাবে মারপিট করা সম্ভব হলো জানতে চাইলে সেখানে যাওয়া পুলিশ অফিসার বাগাতিপাড়া মডেল থানার এসআই সাইফুল বলেছিলেন, কোন পক্ষই আমার বোন ভগ্নিপতি নয়, তাই আমি সেখানে নিরপেক্ষ ভাবে দায়িত্ব পালন করেছি মাত্র। এসআই সাইফুলকে পরে নাটোরের নলডাঙ্গা থানায় বদলী কার হয়েছে। বাগাতিপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসআই প্রদীপ কুমার জানান মামলায় ৫৬ জনের নামেই গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী হয়েছে এমন কথা তিনি শুে ছেন তবে আদালত থেকে কাগজপত্র থানায় না আসায় পুলিশ কাউকেই আটক করতে পারছেন না।