ঢাকা

রাজধানীতে চালু হচ্ছে মোটরসাইকেলে যাত্রীসেবা

৯নিজস্ব প্রতিবেদক, হটনিউজ২৪বিডি.কম ৮ মে : গণপরিবহণস্বল্পতা ও তীব্র যানজটে নাকাল রাজধানীবাসী। সময়মতো কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যে পৌঁছানো যায় না প্রায় সময়ই। অনেক সময় গন্তব্যে সময়মতো পৌঁছানো গেলেও এজন্য নানা ভোগান্তি পোহাতে হয়। এ সময় মনে হয়- যদি আমার একটি মোটরসাইকেল থাকত, তাহলে এত সমস্যা হতো না।

আপনাকে আর আফসোস করতে হবে না। এ সমস্যার সমাধান নিয়ে আসছে একটি অ্যাপ। এই অ্যাপস ব্যবহার করে যেকোনো যাত্রী চাইলেই পেতে পারেন মোটরসাইকেলে চলাচলের সুবিধা।
অন্যদিকে যাদের মোটরসাইকেল আছে, তারা নিজের চলাচলের পাশাপাশি যাত্রীসেবা দিয়ে আয়ও করতে পারবেন।

এ সেবা নিতে ক্ষেত্রে মোটরসাইকেলের মালিক (বাইকার) ও যাত্রী (রাইডার) উভয়কে একটি অ্যাপস ডাইনলোড করে ওই নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত হতে হবে। ডাটা ভক্সসেল লিমিটেড নামের একটি বেসরকারি সংস্থা এ নতুন সেবা নিয়ে আসছে। সংস্থাটি ‘স্যাম’ (শেয়ার এ মোটরসাইকেল) নামের অ্যাপটির মাধ্যমে বাইকার ও রাইডারের মধ্যে সংযোগ ঘটিয়ে অল্প খরচে নিরাপদে ও আরামে দ্রুত যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছে দিতে সাহায্য করবে। আগামী ১ জুন থেকে এ সুবিধা পাওয়া যাবে।
শনিবার রাজধানীর গুলশানের একটি কনভেনশন সেন্টারে নতুন এ সেবার উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ডাটা ভক্সসেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ইমতিয়াজ কাসেম এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ঢাকা শহরে ৪ লাখের বেশি ব্যক্তিগত মোটরসাইকেল আছে। এসব দিয়ে প্রতিদিন ৪ লাখের বেশি যাত্রী পরিবহণ করা সম্ভব। এ চিন্তা থেকেই ডাটা ভক্সসেল লিমিটেড বাংলাদেশে ই-কমার্স ভিত্তিক এ সেবা দিতে যাচ্ছে। এ সেবাই হচ্ছে ‘স্যাম’। স্যাম হলো পৃথিবীর প্রথম ই-ইশারা প্ল্যাটফর্ম, যার মাধ্যমে একজন যাত্রী সহজে মোটরসাইকেলে করে তার গন্তব্যে পৌঁছাতে পারবেন। স্যাম অ্যাপটি রাইডারের (যাত্রী) সঙ্গে বাইকারের (মোটরসাইকেলের মালিক) সংযোগ করিয়ে দেবে। বাইকার ও রাইডার স্যাম অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে একই গন্তব্যে পৌঁছাতে পারবেন। যাত্রীরা তাদের টাকাও পরিশোধ করতে পারবেন এই অ্যাপের মাধ্যমে। তাই সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি অত্যন্ত নিরাপদ।

এ ধরনের যাত্রীসেবায় খরচের বিষয়ে ইমতিয়াজ বলেন, এই সেবা পেতে যাত্রীকে কমপক্ষে ৩০ টাকা দিতে হবে। এ ছাড়া মোটরসাইকেলের মালিককে (বাইকার) কিলোমিটারপ্রতি ৬ টাকা করে দিতে হবে। যাত্রাপথে কোনো যাত্রী যদি বাইকারকে দাঁড় করিয়ে রাখেন, সেক্ষেত্রে মিনিট প্রতি দুই টাকা দিতে হবে। আর সব লেনদেন হবে ই-পেমেন্টের মাধ্যমে। মোট বিলের ২০ শতাংশ দিতে হবে সংস্থাকে।

স্যাম অ্যাপটি সুবিধার বিষয়ে আরো বলা হয়, স্যাম মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্তদের বিকল্প পরিবহণে অতিরিক্ত সময় ও শক্তি খরচ ছাড়া অতিরিক্ত কিছু অর্থ উপার্জনের সুযোগ করে দিচ্ছে। একই সঙ্গে ঢাকা শহরের পরিবহণ ব্যবস্থার একচ্ছত্র আধিপত্য ভাঙতে সাহায্য করবে।

সংস্থাটির পক্ষ থেকে আশ্বস্ত করা হয়েছে, ‘স্যাম’ এর রেজিস্ট্রেশনভুক্ত মোটরসাইকেল চালকদের বিআরটিএর বৈধ কাগজপত্র থাকবে এবং তারা ট্রাফিক আইন ও নিয়ম মেনে চলবেন। অ্যাপটি আগামী মাসের মধ্যে তৈরি হবে। স্যাম অ্যাপসটি তৈরি করেছে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত কিছু বাংলাদেশি ও ভারতীয় প্রকৌশলী।

যেভাবে অ্যাপসটি কাজ করবে

রাইডার ও বাইকারকে তাদের অ্যানড্রয়েড ডিভাইসে রাইডার অ্যাপটি ইনস্টল করতে হবে। বাইকার ও রাইডার স্যামে লগ ইন করবেন। রাইডার তার যাত্রার জন্য একটি অনুরোধ পাঠাতে পারবেন, যা আশপাশের দুই কিলোমিটারের মধ্যে থাকা সব বাইকারের কাছে পৌঁছাবে। একই গন্তব্য অভিমুখী বাইকার রাইডারের অনুরোধটি গ্রহণে করবেন এবং এগিয়ে গিয়ে রাইডারকে মোটরসাইকেলে তুলে নেবেন। তারপর যাত্রা শুরু করবেন। মাইলেজ মিটারটি দূরত্ব নির্ধারণ করবে এবং সে অনুযায়ী বিল হবে। স্যাম অ্যাপের ই-ওয়ালেটের মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিল আদান-প্রদান হবে। নগদ টাকা লেনদেনের প্রয়োজন নেই। একটি রাইডের অনুরোধ করা অথবা একটি রাইড অনুমোদন করার আগে রাইডার এবং বাইকার দুজন দুজনকে মূল্যায়ন করার সুযোগ পাবেন।

রাইডার ও বাইকারের সব তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করা হবে নিরাপত্তার কারণে। কিছু তথ্য রাইডার ও বাইকার আদান প্রদান করতে পারবেন, যখন তারা একজন আরেকজনকে অনুরোধ করবেন এবং অনুরোধ গ্রহণ করবেন। এভাবে বাইকার ও রাইডার একজন আরেকজন সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারবেন যে তিনি কার যাত্রাসঙ্গী হচ্ছেন।

ডাটা ভক্সসেলের সঙ্গে কৌশলগত সহযোগী হিসেবে থাকছে ওমেরা, রহিম আফরোজ, বিকাশ, গ্যাটকো এবং অলওয়েজ অনলাইন নেটওর্য়াক।
হটনিউজ২৪বিডি.কম/এআর