জাতীয়

খেলায় পাকিস্তানকে সমর্থন না দেয়ার আহ্বান নৌমন্ত্রীর

১৩নিজস্ব প্রতিবেদক, হটনিউজ২৪বিডি.কম ২৬ এপ্রিল : বাংলাদেশ ছাড়া অন্য দেশের সঙ্গে খেলার সময় পাকিস্তানকে সমর্থন না দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন নৌমন্ত্রী মো.শাজাহান খান। সোমবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম বন্দরের একটি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহ্বান জানান তিনি।

চট্টগ্রাম বন্দরের ১২৯ বছর পূর্তি উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের সম্মানে এ সংবর্ধনা সভার আয়োজন করে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ।

বাংলাদেশকে ধ্বংস করতে পাকিস্তান এখনো ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে অভিযোগ করে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশকে অস্থিতিশীল করে অর্থনীতিকে ধ্বংস করতে পাকিস্তান এখনো ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে।

‘তারা বাংলাদেশকে অখন্ড পাকিস্তান করতে চায়। আর এই ষড়যন্ত্রে মদদ দিচ্ছে স্বাধীনতা বিরোধী জামায়াত-বিএনপি।’

বাংলাদেশ ছাড়া যখন অন্যদেশের সঙ্গে পাকিস্তানের খেলা হয়, তখন বাংলাদেশের কিছু মানুষ পাকিস্তানকে সমর্থন দেয়ার সমালোচনা করে মন্ত্রী বলেন,‘দেখি দেশের মানুষ তাদের সমর্থন দেয়। কেবল তা-ই নয়। পতাকা নিয়ে মাঠেও যায়। দেখে লজ্জা হয়, ঘৃণা হয়। খেলায় পাকিস্তানকে নৈতিক সমর্থন দেব না আজ আমাদের এই প্রতিজ্ঞা করতে হবে।’

চট্টগ্রাম বন্দরকে সারা বাংলাদেশের গর্ব উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধে এই বন্দর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল। বাংলাদেশের নিরিহ মানুষ হত্যা করতে পাক বাহিনী সোয়াত জাহাজে করে অস্ত্র নিয়ে এসেছিল। কিন্তু এই বন্দরের শ্রমিক-কর্মচারীরা জীবন দিয়ে তা প্রতিহত করেছে।

চট্টগ্রাম বন্দর অর্থনীতির প্রাণকেন্দ্র উল্লেখ করে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য এম এ লতিফ বলেন, ভারতের সাতটি রাজ্য এই বন্দরের দিকে তাকিয়ে আছে। আমাদের অর্থনীতির সঙ্গে ভারতের অর্থনীতি জড়িত।

এই বন্দর ব্যবহার করে তারা যেমন উপকৃত হবে তেমনি আমরাও অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাব। ভারত পায়রা বন্দরও ব্যবহার করতে চায়।

বক্তব্যের শুরুতে তিনি নৌমন্ত্রী শাজাহান খানকে কবি, লেখকসহ বিভিন্ন বিশেষণে আখ্যায়িত করে বলেন, উনি একজন মুক্তিযোদ্ধা। কেবল মুকিযোদ্ধা নয়, বীর মুক্তিযোদ্ধা।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম খালেদ ইকবাল জানান এ পর্যন্ত চট্টগ্রাম বন্দরে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ২৫৪ জনকে চাকরি দেওয়া হয়েছে। তবে সংখ্যা সন্তোষজনক নয় বলে জানিয়েছেন এম এ লতিফ। আগামীতে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় আরো বেশি সংখ্যক লোক নিয়োগ দেওয়ার দাবি জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে চট্টগ্রাম বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম খালেদ ইকবাল, ডেপুরি কনজারভেটর ক্যাপ্টেন নাজমুল আলম, মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহিদুল্লাহ সরকার প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
হটনিউজ২৪বিডি.কম/এআর