শিক্ষাঙ্গন

ইবির ভিসি অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন

১৫নিজস্ব প্রতিবেদক, হটনিউজ২৪বিডি.কম ২৩ এপ্রিল : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আব্দুল হাকিম সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছেন শিক্ষক-কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ। ভিসির দুর্নীতি ও সরকারি অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় গঠিত ইউজিসি ও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের তদন্ত কমিটি তদন্তে সত্যতা পাওয়া সত্বেও ভিসির বিরুদ্ধে এখনো কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করায় শিক্ষক-কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা দারুণ ক্ষোভ প্রকাশ করে ভিসির অপসারণের দাবি জানান। বৃহষ্পতিবার বিকালে কুষ্টিয়া প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও সমাবেশ বক্তারা এ দাবি করেন।

মানববন্ধন কর্মসূচীতে অংশগ্রহনকারীরা জানান, ভিসির মদদে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোভিসি অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমানের বিরুদ্ধে জাতীয় একটি দৈনিকে বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করা হয়। এতে প্রো-ভিসিসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি দারুনভাবে ক্ষুন্ন হয়। ঘটনার প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ শিক্ষক-কর্মকর্তা,কর্মচারীর ও সাবেক ছাত্র নেতারা বিকাল সোয়া ৫ টারদিকে মানববন্ধনে অংশ গ্রহন করেন। প্রায় আধঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন শেষে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. রেজাউল করিম, অধ্যাপক ড. বাকী বিল্লাহ,কর্মকর্তা নওয়াব আলী খান,ছাত্রনেতা মিজানুর রহমান মিজু প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। বিশ^বিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমানের “জামায়াত কানেকশন” দৈনিক সমকাল পত্রিকায় গত ২১ এপ্রিল বানোয়াট যে সংবাদ প্রকাশ করা হয় বক্তারা তার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান।

শিক্ষক-কর্মকর্তারা অভিযোগ করেন যে, ভিসি অধ্যাপক ড. আব্দুল হাকিম সরকারের দুর্ণীতি,সরকারী অর্থ আত্মসাৎ ও নিয়োগ বানিজ্যের অভিযোগে ইউজিসি ও শিক্ষা মন্ত্রনালয় কর্তৃক উচ্চ পর্যায়ের তিনটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ওই তদন্ত কমিটির সরেজমিন তদন্তে ভিসির দুর্নীতি ও সরকারী অর্থ আত্মসাতের প্রমান মেলে। পরবর্তীতে তিনটি তদন্ত কমিটি শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে সুপারিশসহ তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। ভিসির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনে তদন্ত কমিটির সুপারিশ সম্বলিত তদন্ত প্রতিবেদন ও ফাইলটি অনুমোদনের জন্য শিক্ষা মন্ত্রানালয় থেকে প্রধানমন্ত্রীর দফতরে পাঠানো হয়েছে বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তারা জানান।

এদিকে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের ঘটনায় ভিসিকে দায়ী করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল শিক্ষক সংগঠন শাপলা ফোরামের পক্ষ থেকে বিবৃতি দেয়া হয়েছে। বিবৃতিতে সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক ড. কামাল মো. কামাল উদ্দিন ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শাহাদৎ হোসেন আজাদ জানান, সমকাল পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদটি মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্নীতিবাজ ভিসি অধ্যাপক ড. আব্দুল হাকিম সরকারের মদদে তার দোসররা মিথ্যা ওই সংবাদ প্রকাশের সাথে জড়িত বলে উল্লেখ করা হয়।

ভিসিকে রক্ষা এবং বানিজ্য ভিসির দুর্নীতি ও সরকারী অর্থ আত্মসাতের ঘটনা ধামা চাপা দিতেই ভিসির অনুসারী ও দোসররা মিথ্যা সংবাদ ও কুৎসা রটনায় লিপ্ত বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়। অপরদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত ছাত্রলীগের সাবেক নেতৃবৃন্দ ও প্রগতিশীল ছাত্র নেতারাও পৃথক বিবৃতিতে বিশ^বিদ্যালয়ের ভিসিকে দুর্নীতিবাজ আখ্যায়িত করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবা জানান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান জানান, হীনউদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য কুচক্রী মহলের যোগসাজশে তাকে জড়িয়ে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে প্রকাশিত ওই সংবাদ ভিত্তিহীন বলে তিনি দাবি করেন।
হটনিউজ২৪বিডি.কম/এআর