ঢাকা প্রধান খবর

বেলারুশে পণ্য প্রবেশে শুল্ক-কর ছাড় চাইলেন- প্রধানমন্ত্রী

images (3) হটনিউজটোয়েন্টিফোরবিডি.কম,ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেলারুশে বাংলাদেশি পণ্য রফতানিতে শুল্ক ও করমুক্ত বাণিজ্য সুবিধা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।সোমবার সে দেশটির এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে তিনি এ আহ্বান জানান। বেলারুশ টেলিগ্রাফ এজেন্সির ওয়েবসাইট থেকে এতথ্য জানা গেছে।উল্লেখ্য, গত ৪ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আটদিনের ইউরোপ সফরে প্রথমে লন্ডন যান। সেখানে পাঁচ দিনের সফর শেষ করে সোমবার রাতে বেলারুশ যান।সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এই সুবিধার ফলে দুই দেশের মধ্যে সর্ম্পক উন্নয়নের পাশাপাশি বিভিন্ন ক্ষেত্রে পারস্পরিক সহযোগিতার হাত আরো সুদৃঢ় হবে।”

তিনি বলেন, “আমরা দুই দেশের মধ্যে একটি ফলপ্রসূ সর্ম্পক তৈরি করতে চাই। আর এ জন্য বেলারুশে বাংলাদেশি পণ্যের কর ও শুল্কমুক্ত বাণিজ্যের সুবিধার আহ্বান জানাচ্ছি। যদি মিনস্কে (বেলারুশের রাজধানী) এই চুক্তি সই হয়, তবে বেলারুশে আমরা আমাদের বাণিজ্য আরো বাড়াতে পারবো।”এ ছাড়া চুক্তির ফলে বেলারুশের সঙ্গে বাংলাদেশের যৌথ বিনিয়োগের প্রক্রিয়াগুলো আরো ত্বরান্বিত হবে বলে প্রধানমন্ত্রী এ সময় উল্লেখ করেন।২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে দরিদ্র দেশের তালিকা থেকে বের করে নিয়ে আসার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “লক্ষ্য অর্জনে আমরা ধাপে ধাপে এগিয়ে যাচ্ছি। বেলারুশের সঙ্গে পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে আমরা এই লক্ষ্যে দ্রুত এগিয়ে যাবো।”প্রধানমন্ত্রীর বেলারুশ সফরে দুই দেশের মধ্যে একটি যৌথ বাণিজ্যিক ফোরাম গঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। ফোরামে ৩০টি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা ছাড়াও বাংলাদেশের যৌথ শিল্পের প্রতিনিধিরা থাকবেন বলে আশা করা হচ্ছে।বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের মধ্যে টেক্সটাইল পণ্য উৎপাদন ও বিক্রয় প্রধান, কৃষিপণ্য ও সামুদ্রিক খাদ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের প্রধান ছাড়াও হোটেল ও ট্যুরিজম ব্যবসা প্রতিনিধি, জ্বালানি, টেলিকমিউনিকেশন এবং রিয়েল এস্টেটসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরা ফোরামে থাকবেন।এদিকে, গতবছর বেলারুশে বাংলাদেশি পণ্যের শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকারসহ কৃষি, শিক্ষা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন খাতে বাংলাদেশ ও বেলারুশের মধ্যে সাতটি চুক্তি ও পাঁচটি সমঝোতা স্মারক সই হয়।বেলারুশে বাংলাদেশি পণ্য শুল্কমুক্তভাবে প্রবেশ হলে কাজাখস্তান ও রাশিয়াতেও বাংলাদেশি পণ্য শুল্কমুক্ত প্রবেশ করতে পারবে।অপরদিকে, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানায়, বাংলাদেশ ও বেলারুশের সম্পর্ক মূলত অর্থনৈতিক সহযোগিতা এবং বিভিন্ন খাতে বাণিজ্য ও বিনিয়োগকেন্দ্রিক। বেলারুশ বাংলাদেশে জ্বালানি তেল ও গ্যাস উত্তোলন, ঔষধ শিল্প, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, স্বাস্থ্যখাতসহ বিভিন্ন খাতে সহযোগিতা ও বিনিয়োগে আগ্রহী।বেলারুশ থেকে পটাশ সার, ট্রাক্টর, এক্স-রে যন্ত্রপাতি ও সিনথেটিক ফাইবার আমদানি করা হয়। আর পোশাক, তামাক, কাঁচামাল এবং পাট ও পাটজাত পণ্য বাংলাদেশ থেকে সে দেশে রফতানি হয়।২০১২ সালের নভেম্বরে বেলারুশ প্রধানমন্ত্রী মিখাইল ভি মিয়াসানিকোভিচ বাংলাদেশ সফরে আসেন।