অপরাধ জাতীয় দিনাজপুর রংপুর

দিনাজপুরে অকালে হারাচ্ছে মানুষের প্রাণ

130450e2-c6d1-4da6-a63b-c60958dde4d0মো. নুরুন্নবী বাবু, দিনাজপুর থেকে: দিনাজপুর পূনর্ভবা নদীটি এখন মরন ফাঁদে পরিনত হয়েছে। প্রশাসনের নাকের ডগায় অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করায় অসংখ্য মরন ফাঁদে পরিণত হয়েছে। এসব মরণ ফাদে পড়ে অনেকেই অকালে মৃত্যুবরণ করেছে। সম্প্রতি এসব মরন ফাঁদে মধ্যে তিন স্কুল ছাত্রের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। প্রতি বছর পূনর্ববা নদীর বালু মহাল ইজারা দেয়া হয় সরকারী ভাবে। এবার ইজারাদার আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা তৈয়ব উদ্দিন চৌধুরী। কিন্তু বালু উত্তলন না করে বিভিন্ন জনকে সাবলেট দিয়েছে। এসব সাবলেট ইজারাদার সরকারী কোন নিয়ম কানুন না মেনে ইচ্ছাতম বালু উত্তোলন করছে। দিনাজপুর শহরের মানিকপীর গোবরাপাড়া গ্রামের মৃত আজিজার রহমানের পুত্র জোবায়দুর রহমান ওই স্থানে দীর্ঘ দিন ধরে অবৈধ ভাবে বালু উত্তলন করে আসছে। ফলে ওই স্থানে প্রায় ৭০ ফুট গভীল এক গর্তে পরিনত হয়েছে। এই গর্তে পড়েই তিনজন ছাত্রের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। জোবায়দুর রহমান ছাড়াও আরো কয়েক জন নদীতে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করছে।
এলাকাবাসী জানান, বালু উত্তোলনকারীরা যেভাবে বালু উত্তোলন করছে তাতে বাঙ্গীবেচা ঘাটের বিশাল সেতুটি ঝুঁকির মধ্যে পড়ে যাচ্ছে। কারন সেতুর পিলারের কাছে এধরনের গভীর গর্ত করা হলে সেতুটি ধ্বসে পড়তে পারে। অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে অবহিত করা হলেও কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি। প্রকাশ্যই বালু উত্তোলন অব্যাহত রয়েছে। ১৯ এপ্রিল ওই বালুর গর্তে পড়ে তিনটি শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। এই মৃত্যুও পর প্রশাসনের টনক নড়েছে। কিন্তু অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ হয়নি।
একজন বালু উত্তোলনকারী নাম প্রকাশনা করার শর্তে জানান, আমরা মুল ইজারাদারের কাছ থেকে সাবলেট নিয়েছি মোটা অংকের বিনিময়ে। কিন্তু কোন কোন সাবলেট ইজারাদার সরকারী বিধি লংঘন করে বালু উত্তোলন করায় এধরনের বিপদ জনক মরন ফাঁদ সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়াও যদি সেতুটির পিলারের কাছে এধরনের বালু উত্তোলন করা হয় তাহলে সেতুটি ধ্বসে পড়তে পারে। এছাড়াও গর্ত গুলো পানির নীচে থাকায় সাতার কাটতে গিয়ে অনেকে ওই গর্তে পড়ে অকালে প্রান হারাচ্ছে। পূনর্ভবা নদীটি এখন মরন নদীতে পরিনত হয়েছে। পূনর্ভবা নদীর উপর বাঙ্গীবেচা
ঘাটে বিশাল সেতুটি রক্ষা এবং অকালে মৃত্যুও হাত থেকে স্কুল-কলেজের ছাত্রদের জীবন রক্ষায় প্রশাসনের কঠোর ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন।