রাজশাহী হটনিউজ স্পেশাল

বিতর্কিত ব্যক্তিকে অধ্যক্ষ পদে নিয়োগের চেষ্টা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা

nator mapমোঃ মাহফুজ আলম মুনী, নাটোর থেকে:নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার ধানাইদহ ফাজিল (ডিগ্রী) মাদরাসায় জনমতের তোয়াক্কা না করে ওসমান গণি নামে দুর্নীতিবাজ ও বিতর্কিত এক ব্যক্তিকে অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দেয়ার চেষ্টা করছেন সভাপতিসহ কতিপয় ব্যক্তি। এদিকে, মাদরাসায় শিক্ষার্থী, শিক্ষকমন্ডলী ও অভিভাবকদের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে তীব্র আপত্তি জানিয়ে জেলা প্রশাসকসহ বিভিন্ন দপ্তরে স্মারকলিপি প্রদান ও এলাকায় ব্যাপক পোষ্টারিং করা হয়েছে। এতে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। ধানাইদহ ফাজিল (ডিগ্রী) মাদরাসায় অধ্যক্ষের শুন্য পদ পূরণের জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হলে মোট ছয়জন প্রার্থী আবেদন করেন কিন্তু কমিটির সভাপতি আব্দুল কাদের মন্ডল ম্যানেজিং কমিটির অধিকাংশ সদস্যের মতামত উপেক্ষা করে প্রায় আট লাখ টাকার বিনিময়ে ওসমান গণি নামে একজনকে অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দেয়ার চেষ্টা করছেন। ওসমান গণি এর আগে উপজেলার ইসলামপুর গুনাইহাটি সিনিয়র মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসাবে কর্মরত থাকাকালে শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির টাকা ও ব্যবহারিক পরীক্ষার নম্বর দিতে অতিরিক্ত টাকা তুলে আত্মসাৎ সহ নানা দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। সে সময় এসব বিষয়ে বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর তদন্তে অভিযোগের সত্যতা মেলায় তিনি শিক্ষার্থীদের সে টাকা ফেরৎ দেন। পরে ম্যানেজিং কমিটির চাপের মুখে তিনি পদত্যাগ করেন। সম্প্রতি তাকেই ধানাইদহ মাদরাসায় অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দেয়ার চেষ্টা করলে এলাকাবাসীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এ ধরণের বিতর্কিত ব্যক্তিকে অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দেয়ার চেষ্টার প্রতিবাদে মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাওলানা মোজাম্মেল হক দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নিয়েছেন। এছাড়া স্মারকলিপি প্রদান সহ ব্যাপক পোষ্টারিং করায় এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ অবস্থায় তাকে নিয়োগ দেয়ার চেষ্টা করলে মাদরাসায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষসহ যে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ব্যাপারে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুল কাদের মন্ডল পৃথক তিনটি স্মারকলিপি পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, ম্যানেজিং কমিটির মিটিং ডেকেছি। সেখানে আলোচনা শেষে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তবে তিনি টাকা নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, আমি অসুস্থতার কারণে ছুটিতে আছি। ছুটি শেষে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।