জাতীয় ঢাকা প্রধান খবর রাজনীতি

শান্তি ছিল বলেই দেশে প্রবৃদ্ধি বেড়েছে : প্রধানমন্ত্রী

Hasina1460622424 নিজস্ব প্রতিবেদক,হটনিউজ২৪বিডি.কম :  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শান্তিপূর্ণ পরিবেশ ছাড়া উন্নতি কখনোই হয় না। গত এক বছর দেশে শান্তি ছিল বলেই প্রবৃদ্ধি বেড়েছে, মাথাপিছু আয় বেড়েছে, আর এই পয়লা বৈশাখে সারা দেশে উৎসবের আমেজ নিশ্চিত করা গেছে।

বৃহস্পতিবার সকালে গণভবনে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাতে এলে তাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘মানুষের আনন্দ-উৎসব করার জন্য সুযোগ প্রয়োজন, আমরা সে সুযোগ করে দিতে পেরেছি। নিরাপত্তা নিশ্চিত করা খুব জরুরি, সে জন্য যা কিছু করণীয় তা সরকার করছে।’

ধর্ম নিয়ে যারা বাড়াবাড়ি করে তাদের কঠোর সমালোচনার পাশাপাশি যারা ধর্মের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে নোংরামি করে তাদেরও তীব্র নিন্দা করেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমার ধর্ম সম্পর্কে কেউ যদি নোংরা কথা লেখে, সেটা কেন আমরা বরদাশত করব? ফ্যাশন দাঁড়িয়ে গেছে ধর্মের বিরুদ্ধে কিছু লিখলেই তারা মুক্তচিন্তার ধারক! কিন্তু আমি এখানে কোনো মুক্তচিন্তা দেখি না। আমি দেখি নোংরামি।’

তিনি আরো বলেন, ‘এত নোংরা নোংরা কথা কেন লিখবে? আমি আমার ধর্ম মানি, যাকে আমি নবী মানি তার সম্পর্কে নোংরা কথা কেউ যদি লেখে সেটা কখনোই আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। ঠিক তেমনি অন্য ধর্মের যারা, তাদের সম্পর্কে কেউ কিছু লিখলে তাও কখনো গ্রহণযোগ্য হবে না। যারা এগুলো করে তা তাদের সম্পূর্ণ নোংরা মনের পরিচয়, বিকৃত মনের পরিচয়। এটা পুরোপুরিই তাদের চরিত্রের দোষ এবং তারা বিকৃত মানসিকতার।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একজন মুসলমান হিসেবে আমি প্রতিনিয়ত আমার ধর্মকে অনুসরণ করে চলি। কাজেই সে ধর্মের বিরুদ্ধে কেউ লিখলে আমি কষ্ট পাই।’

এসব লেখার জন্য কোনো অঘটন ঘটলে তার দায় সরকার নেবে না উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সবাইকেই সংযম হয়ে চলতে হবে, শালীনতা বজায় রেখে চলতে হবে। অসভ্যতা কেউ করতে পারবে না। আর তা করলে তার দায়িত্ব আমরা নেব না।’

দলের উপস্থিত নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজ আমি নির্দিষ্ট কোনো অনুষ্ঠান রাখিনি। আপনারা যারা এসেছেন তাদের মাধ্যমে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, দলের উপদেষ্টা পর্ষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম ও সতীশচন্দ্র রায়সহ সিনিয়র নেতা-কর্মী থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।