রংপুর স্বাস্থ্য

রানীশংকৈল হাসপাতালে খাবার সরবরাহের টেন্ডারে অনিয়ম

হটনিউজ ঠাকুরগাঁও অফিস ও হুমায়ুন কবীর বালিয়াডাঙ্গী (ঠাকুরগাঁও) থেকে:ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল উপজেলার imagesপথ্য সরবরাহ সহ ধোলাই এবং ষ্টেশনারী দ্রব্যাদি সরবরাহের টেন্ডারে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ প্রভাবিত হয়ে টেন্ডার কার্যক্রমে অংশ নেয়া কাউকে অবহিত করা ছাড়াই একটি মহলকে টেন্ডার পাইয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

হাসপাতাল সূত্র ও অভিযোগকারী ঠিকাদারগন জানান, প্রতি বছরের ন্যায় এবারও ১শ শয্যা বিশিষ্ট রানীশংকৈল স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে খাদ্য সরবরাহ সহ কয়েকটি কাজের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়। গত ২৩ জুন তারিখে টেন্ডার জমা দেয়ার শেষ দিনে বিক্রি হওয়া মোট ৩৪ টি টেন্ডারের মধ্যে ২৩ টি টেন্ডার জমা হয় এবং একই দিনে বিকেলে ঠিকাদারদের সামনে টেন্ডারগুলো খোলা হয়। কিন্তু কোন ঠিকাদার বাজার মূল্য অনুয়ায়ি কত কম মূল্যে খাদ্য ও অন্যান্য দ্রব্য সরবরাহ করবেন সে বিষয়টি উপস্থিত কাউকে জানানো হয়নি। কোন ঠিকাদার সবচেয়ে কম মূল্যে দরপত্র দিয়েছেন এ বিষয়টি উপস্থিত ঠিকাদারগন জানতে চাইলে তাদের জানানো হয়, সিভিল সার্জন টেন্ডার মূল্যায়ন কমিটির সভাপতি, তিনি না আসার কারনে বিষয়টি কাউকে জানানো হবে না, তবে তিনি এসেই সর্বনিু দরদাতা কে তা ঘোষনা করবেন।

দরপত্রে অংশ নেয়া ঠিকাদার মনিরুজ্জামান মনির, খায়রুল ইসলাম সহ কয়েকজন অভিযোগ করে বলেন, পূর্বের ঠিকাদারকেই পুনরায় কাজ পাইয়ে দিতেই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এ কৌশল অবলম্বন করেছে। এ বিষয়ে ঠিকাদারগন সিভিল সার্জন সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছেন। মঙ্গলবার (৯ জুলাই) বিষয়টি সুরাহার কথা থাকলেও সুরাহা না হওয়ায় ঠিকাদারগন বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন। তাদের দাবি সবার সামনে টেন্ডার খোলা হলেও ফলাফল ঘোষনা না করায় বিষয়টিতে অনিয়মের আশ্রয় নেয়া হয়েছে। তা সুষ্ঠ তদন্ত ও বিচার দাবি করেছেন।

এ ব্যাপারে রানীশংকৈল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিবার কল্পনা কর্মকর্তা ডা. নজরুল ইসলাম অনিয়ম ও আর্থিকভাবে প্রভাবিত হওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, টেন্ডারের সব কার্যক্রম নিয়মতান্ত্রিকভাবেই হয়েছে। তবে কোন ঠিকাদার কত সর্বনিু দরপত্র দাখিল করেছেন এ ব্যাপারে তিনি কোন তথ্য দিতে রাজি হননি।

প্রকাশ্যে এমন অনিয়মের বিষয়টিতে দরপত্রে অংশ নেয়া ঠিকাদারগন বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন। মঙ্গলবার তারা হাসপাতালে গিয়ে কোন তথ্য না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করে বলেন, স্থানীয় এক নেতাকে বিপুল পরিমানে টাকা দিয়ে ম্যানেজ করে এমনর অনিয়ম করা হয়েছে। তারা ঘটনাটির তদন্ত ও বিচার দাবি করেন।