প্রধান খবর

অসত্য অভিযোগে ব্যবস্থা নেবে নির্বাচন কমিশন

Complain-for-no-causeহটনিউজ: ভোটের পরিবেশ যাই হোক না কেন প্রায় প্রতিটি নির্বাচনেই প্রভাব বিস্তার, কারচুপি চেষ্টার অভিযোগ জানিয়ে আসছে বিরোধী দল। নির্বাচনে এ রকম অভিযোগের তদন্তের পর সত্যতা পাওয়া না গেলে কী ধরনের ব্যবস্থা নেয়া যায় তা খতিয়ে দেখছে নির্বাচন কমিশন। এ জন্য নির্বাচনী আচরণ বিধিতে সংশোধনী আনার কথাও ভাবছে তারা।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটের দিন এভাবে দফায় দফায় করে বিফ্রিং করে নানা অভিযোগ করে বিএনপি। ভোটের সময় কখনও কেন্দ্র থেকে এজেন্ট বের করে দেয়া, কখনও এজেন্ট ঢুকতে না দেয়া, কখনও ব্যালট পেপার ছিড়ে দেয়ার অভিযোগ জানায় দলটি।
ভোটগ্রহণ শেষ হয়ে যাওয়ার পরও বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতারা বারবার ছুটে গেছেন নির্বাচন কমিশনে। ফলাফল ঘোষণা নিয়ে চক্রান্ত, ফল পাল্টে দেয়ার ষড়যন্ত্রসহ নানা অভিযোগ করেছেন তারা।
তবে এত সব অভিযোগের কোনো সত্যতা পায়নি নির্বাচন কমিশন বলেন, নির্বাচন কমিশনার মো: শাহনেওয়াজ।
চার সিটি নির্বাচনেও একই ধরনের অভিযোগ করেছিল বিএনপি। দিনভর ঢাকায় দফায় দফায় সংবাদ সম্মেলন করে কারচুপি আর অনিয়মের অভিযোগ করলেও তার কোনো ভিত্তি খুঁজে পায়নি কমিশন। এর আগে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনসহ বিভিন্ন উপ নির্বাচনেও একই ঘটনা ঘটেছে।
নির্বাচনী আচরণবিধি পরীক্ষা করে দেখছে, ভবিষ্যতে অসত্য অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেয়া যায় কিনা।
নির্বাচনের মতো স্পর্শকাতর বিষয়ে অভিযোগ দেযার সময় দায়িত্ত্বশীলতার পরিচয় দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে কমিশন।