খেলা

দল নির্বাচনের সমালোচনা করায় শাস্তি হতে পারে আফ্রিদি, মালিক ও আকমলের

download (2)স্পোটর্স ডেস্ক : দল নির্বাচন বিষয়ে পিসিবি’র সমালোচনা করেন আফ্রিদি, আকমল ও মালিক এবং বোর্ডের একটি সূত্র জানিয়েছে খেলোয়াড় আচরণবিধির ব্যত্যয় ঘটেছে কিনা সে লক্ষ্যে এ তিনজনের সবার বক্তব্যই পরীক্ষা করা হচ্ছে। সূত্র জানায়, কোনো খেলোয়াড়ই নির্বাচক, ম্যানেজমেন্ট ও বোর্ড কর্মকর্তাদের সমালোচনা করতে পারেন না এবং বর্তমানে তাদের বক্তব্যগুলো পর্যালোচনা করা হচ্ছে, তারা আচরণবিধি ভঙ্গ করেছেন কি না।’ গতমাসে সমাপ্ত আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খারাপ পারফরমেন্স করায় দল থেকে বাদ পড়া মালিক সাংবাদিকদের বলেছেন, জাতীয় দল থেকে তার বাদ পড়াটা প্রাপ্য ছিল না। গণমাধ্যমে দল নির্বাচন বিষয়ে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) সমালোচনা করায় শাস্তি পেতে হতে পারে সাবেক অধিনায়ক শোয়েব মালিকসহ সদ্য দলে পুনরায় ডাক পাওয়া অলরাউন্ডার শহিদ আফ্রিদি ও ব্যাটসম্যান উমর আকমলকে।

মালিক বলেন, ‘কেবল মাত্র একটা অথবা দু‘টো সিরিজের পরই একজন খেলোয়াড়কে দল থেকে বাদ দেয়াটাকে আমি সঠিক মনে করি না। নিজকে প্রমাণ করার জন্য একজন খেলোয়াড়কে অবশ্যই পূর্ণ ও যথাযথ সময় দিতে হবে। একটা কিংবা দু‘টো সিরিজে যেকোনো খেলোয়াড়েরই খারাপ সময় যেতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তিন ম্যাচ খারাপ করার আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় ভালো করার কারণে আমি দল থেকে বাদ পড়তে পারি না মনে করছি।’

লোয়ার অর্ডারে ব্যাট করতে বলার পর থেকে তার ব্যাটিংয়ে প্রভাব পড়ছে মনে করা মালিক বলেন, পাকিস্তান জাতীয় দল কিংবা ঘরোয়া ক্রিকেট যেখানেই খেলুক এখন থেকে তিনি শীর্ষ চারে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। মালিক বলেন, ‘শীর্ষ চারে ব্যাট করাটাকে আমি প্রাধান্য দিই এবং এখন থেকে আমি তাই করবো।’ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দল থেকে বাদ পড়ার পর পুনরায় দলে ফেরা আফ্রিদি বলেন, ‘১৭ বছর পাকিস্তান দলে খেলার পর পরবর্তী ম্যাচে তার খেলার নিশ্চয়তা না থাকাটা অত্যন্ত কষ্টের বিষয়।

জিও নিউজকে আফ্রিদি বলেন, ‘এমনকি ১৭ বছর পরও আমি জানি না পরবর্তী ম্যাচের দলে আমি থাকবো কিনা। প্রতিটি ম্যাচই আমার শেষ ম্যাচের মতো এবং এটা অবশ্যই ঠিক নয়।’ তিনি বলেন, ‘আমার ক্যারিয়ার ও বয়সের এ পর্যায়ে আমার জন্য সব সময় নিশ্চিত থাকা উচিত যে, আমি খেলছি, পরবর্তী ম্যাচে সুযোগ পেতে আমাকে কোন দুঃশ্চিন্তা করতে হবে না।’ জাতীয় দলে পুনঃডাক পাওয়া আরেকজন আকমল চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দল থেকে তার নিজের বাদ পড়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।

ক্রিকেটে ওয়েবসাইট পাক প্যাশনকে আকমল বলেন, ‘এমন ধরনের সম্মানজনক টুর্নামেন্টে খেলতে না পেরে আমি খুবই হতাশ। আমি মনে করি এটা ছিল একটা ভুল ও বিস্ময়কর সিদ্ধান্ত এবং এমনটা ঘটবে সত্যিই আমি ভাবিনি। দলে জায়গা পাওয়াটা কখনোই তোমার নিশ্চিত নয়। তবে যথেষ্ট বিচার না করে হঠাৎ করে আমাকে যেভাবে দল থেকে বাদ দেয়া হলো তা মেনে নেয়াটা কঠিন ছিল।’ বাদ পড়ার পর এক পর্যায়ে ক্রিকেট থেকেই অবসর নেয়ার কথা ভাবছিলেন বলেও প্রকাশ করেন আকমল। তবে কয়েকজন সাবেক খেলোয়াড় তাকে এমন সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসতে বলেছেন। সূত্র : এএফপি।