সারাদেশ

হাওরের মাঠে একখণ্ড মুক্তিযুদ্ধ

৪৮.16-700x302নিজস্ব প্রতিবেদক, হটনিউজ২৪বিডি.কম ২৭ মার্চ : সকাল সাড়ে ১১টা। খড়ের দু’টি ছোট বাড়ি। বাড়ির পাশে বসে কয়েকজন গৃহবধূ গৃহস্থালির কাজ করছেন। আবার কেউ কেউ বাড়ির পুরুষদের রান্না করা খাবার পাত্রে তুলে দিচ্ছেন। এ সময় বাড়ির পাশে ঘুরঘুর করছিলেন দুই রাজাকার।

হঠাৎ করে দুই রাজাকার উধাও। কিছুক্ষণের মধ্যে দুই বাড়ির মধ্যে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হামলা। ঠাস ঠাস …. গুলির শব্দ, বাড়িঘরে আগুন। দুই বাড়ির মানুষের দিগ্বিদিক ছুটাছুটি। গুলিবিদ্ধ হয়ে চারজনের মৃত্যু হয়।

হানাদার বাহিনীর হামলার খবর পেয়ে ছুটে আসে মুক্তিবাহিনী। শুরু হয় মুক্তিবাহিনী ও হানাদার বাহিনীর যুদ্ধ। চারদিকে গুলির ও বোমার আওয়াজ। এ যুদ্ধে পরাজয় বরণ করে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সদস্যরা।

শনিবার স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজ প্রদর্শনীতে মাঠে অল্প সময়ে এরকম মুক্তিযুদ্ধের সময়কার একখণ্ড যুদ্ধের জীবন্ত বর্ণনাই যেন প্রদর্শন করা হলো। অষ্টগ্রাম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে হাজারো জনতার ভিড়ে অষ্টগ্রাম পাইলট বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এটি প্রদর্শন করেন।

অষ্টগ্রাম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে উপজেলা প্রশাসন। বিভিন্ন প্রদর্শনীতে অংশ নেয় উপজেলার একটি কলেজ, পাঁচটি মাধ্যমিক স্কুল ও ১৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। উপজেলার মোট ২৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কয়েক হাজার শিক্ষার্থী ও শিক্ষকের পাশাপাশি হাজার হাজার মানুষ এ অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম জেমস, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ মহসীন উদ্দিন, সিলেট বিভাগীয় ডিআইজি (প্রিজন) তৌহিদুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলুল হক হায়দারী বাচ্চু, অষ্টগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম মোল্লা, উপজেলা কুচকাওয়াজ উপ-কমিটির আহ্বায়ক রেজাউল করিম সেলিম, রোটারি ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মোস্তফা আরিফ খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
হটনিউজ২৪বিডি.কম/এআর