অর্থ ও বাণিজ্য

বাণিজ্য মেলায় অপেক্ষা মিলনমেলার

4.নিজস্ব প্রতিবেদক, হটনিউজ২৪বিডি.কম ১৫ মার্চ : আনুষ্ঠানিকভাবে বাণিজ্য মেলা শুরু হয়ে গেছে শুক্রবার থেকেই। কিন্তু কাগজে কলমে এখনও মেলা পুরোপুরি তার রূপ ধারণ করেনি।প্রায় ৯৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে পেভিলিয়ন-স্টলগুলোর।টুকটাক কাজ যা বাকি তা চলছে জোরেসোরে।

এই বাকি ৫ শতাংশ কাজ শেষ হলেই পরিপূর্ণভাবে দাঁড়িয়ে যাবে পেভিলিয়ন-স্টলগুলো।তারপর দর্শনার্থীদের ঢল নামবে, শুরু হবে ধুমধাম বেচাকেনা, জমে উঠবে মেলা।

১১ মার্চ বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ২৪তম চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার উদ্বোধন করেন। নগরীর পলো গ্রাউন্ড মাঠের চার লাখ বর্গফুটের অধিক জায়গাজুড়ে আয়োজিত এ মেলায় এবার ১২টি প্রিমিয়ার গোল্ড পেভিলিয়ন, ৩টি মেগা পেভিলিয়ন, ৮টি প্রিমিয়ার পেভিলিয়ন, ২০টি স্ট্যান্ডার্ড পেভিলিয়ন, ১৬৬টি প্রিমিয়ার মেগা পেভিলিয়ন, ২২টি মেগা বুথ, ১০টি প্রিমিয়ার গোল্ড বুথ, ১৪টি স্ট্যান্ডার্ড বুথ, তিনটি রেস্টুরেন্টসহ মোট ৩৮টি পেভিলিয়ন বসেছে। তিনটি আলাদা জোনে বিভক্ত হয়ে মোট ৪৫০টি’রও অধিক প্রতিষ্ঠান মেলায় অংশ নিচ্ছে।

মঙ্গলবার বিকেলে সরেজমিনে মেলার চিত্র দেখতে পলোগ্রাউন্ড মাঠে দেখা যায়, পেভিলিয়ন-স্টলগুলোর শেষমুহূর্তের কাজ চলছে। রং লাগানো, চাকচিক্য আনা এসব কাজই হচ্ছে মূলত। প্রায় তিন শ দর্শনার্থী এসেছেন মেলায়। তবে দর্শনার্থীর ছোটোকাটো জিনিস কিনলেও স্টলে-পেভিলিয়নে ঘুরে জিনিসপত্র পছন্দ করে রাখছেন বেশি।

আরএফএল প্রতিষ্ঠানের পেভিলিয়নের বাইরের ডিজাইনের কাজ চলছিল।রং লাগানো-ধুয়েমুছে সাফ করছেন বেশ কিছু শ্রমিক।
এদেরই শফিক নামের এক শ্রমিক বলেন, ‘আমরা রাত দিন জেগে পুরো মেলার পেভিলিয়ন আর স্টলের শেষ মুহূর্তের কাজ করছি। দু-একদিনের মধ্যে সম্পূর্ণ কাজ শেষ হবে।’

একই পেভিলিয়নের বিক্রয় কর্মী উজ্জ্বল বলেন, ‘আমরা বেচাবিক্রি শুরু করে দিয়েছি।দর্শনার্থীরাও আসা শুরু করেছে।তবে পেভিলিয়নের বাইরের ডিজাইনিংয়ের ছোটোখাটো কিছু কাজ বাকি আছে।শনিবারের মধ্যেই কাজ শেষ হবে বলে আশা করছি।’

গৃহীনি দুই বোন শামিমা আরা এবং নাসরিন আরা মেলায় এসেছেন কিছু কিনবেন বলে।

তারা বলেন, ‘আজ প্রথমবারের মতো মেলায় আসলাম। তবে কিছু কিনবো বলে আসিনি।জিনিসপত্র পছন্দ করে যাব, মেলায় ঘুরবো-এই ভেবে এসেছিলাম। তবুও কিছু ছোটোকাটো গৃহস্থলি জিনিস আর জুতো কিনে নিলাম। এখনও তো মেলার কাজ শেষ হয়নি। মেলা জমে উঠলে আরও বেশ কয়েকবার আসবো।’

পেভিলিয়ন-স্টলের কিছু কাজ বাকি থাকলেও মেলা কমিটির প্রস্তুতি পুরোপুরি সম্পন্ন। একটু পর পর ঘোষণা মঞ্চ থেকে শোনা যাচ্ছে নানা কথা-নির্দেশনা, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন।

দর্শনার্থীদের সেবা দিতে অপেক্ষায় পুলিশ ক্যাম্প, ব্যাংক বুথ আর ফায়ার সার্ভিসের গাড়িও।

মেলার সমন্বয়কারী নুরুল আবছার চৌধুরীর কথায় উঠে আসে তা। তিনি বলেন, ‘আমরা পুরোপুরি প্রস্তত। জমে উঠেছে মেলা। স্টল ও পেভিলিয়নের ছোটোকাটো কাজ বাকি আছে, তা একদিনের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে। এটা শুধু মেলা না, চট্টগ্রামবাসীর মিলনমেলাও।’
হটনিউজ২৪বিডি.কম/এআর