অর্থ ও বাণিজ্য

জিএসপি চালু হচ্ছে

Untitled-13ঢাকা: বাংলাদেশে জিএসপি সুবিধা স্থগিত নিয়ে যখন তোলপাড় চলছে তখন বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী মোহাম্মদ ফারুক খান বললেন, আগামী ছয় মাসের মধ্যে জিএসপি সুবিধা পুনর্বহাল হবে বলে আশা করছি।

রোববার রাজধানীর ডেইলি স্টার ভবনে শিপার্স অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত ‘পোশাক শিল্পের সম্ভাবনা, সমস্যা ও সমাধান’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনার প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ফারুক খান বলেন, ইউরোপ-আমেরিকার সাথে আমাদের আলাপ-আলোচনা চলছে। আশা করা যাচ্ছে, আগামী ছয় মাসের মধ্যে জিএসপি সুবিধা আমেরিকা পুনর্বহাল করবে। জিএসপি স্থগিত করে তো আমাদের সহযোগিতা করা হয়নি। সম্প্রতি ঘটে যাওয়া অ্যাক্সিডেন্টগুলো নিয়ে আমরা চিন্তিত। তবে একথা স্বীকার করতে হবে যে, গত সাড়ে চার বছরে সরকার গার্মেন্ট খাতের উন্নয়নের জন্য কাজ করেছে। কমপ্লায়েন্সের অবস্থা আগের থেকে ভালো হয়েছে। শ্রমআইন এরই মধ্যে কেবিনেটে পাস হয়েছে। আগামী সংসদেই আশা করছি এ আইন পাস হবে।

গার্মেন্ট মালিকদের প্রতি কিছুটা ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘আপনারা শ্রমিকদের মূল্যায়ন করেন না। কথায় কথায় হুমকি দেন যে বিশৃংখলা হলে গার্মেন্ট কারখানা উঠিয়ে চলে যাবেন। এ ধরনের হুমকি দেয়ার মানে কি। আপনারা শ্রমিকদের কখনোই এ শিল্পের অংশ ভাবতে পারেননি। খালি ভাবেন যে দয়া করছেন এদের প্রতি।’

গার্মেন্ট শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে উল্লেখ করে বিজিএমইএ সভাপতি মো: আতিকুল ইসলাম বলেন, ষড়যন্ত্রের কারণেই বাংলাদেশ থেকে জিএসপি স্থগিত করা হয়েছে। প্রত্যেক কারখানার এক্সিট প্ল্যান থাকতে হবে। বাংলাদেশের ব্যাংক, পরিবহন, বীমাসহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট খাতকে এই শিল্পকে বাঁচানোর জন্য এগিয়ে আসা উচিত। নানা খাতে বছরে ২৯ হাজার কোটি টাকা অবদান রাখা হয়। তাই এ শিল্প রক্ষা করার দায়িত্ব আজ সবার।

তিনি আরও বলেন, আমাদের প্রধান বাজার ইউরোপ-আমেরিকা। মোট রফতানির ১২শতাংশ ইউরোপ-আমেরিকার বাইরের দেশে করা হয়। ট্রেড ইউনিয়ন লিগ্যালভাবে হওয়া উচিত ও সৃজনশীলভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করা উচিত। আমরা কখনোই শ্রমিক বাদ দিতে চাই না। এতে আমাদেরই উৎপাদন ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

গোলটেবিল আলোচনায় মূল প্রবন্ধ পাঠকালে সিডির গবেষক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, জিএসপি স্থগিতের কারণে তার প্রভাব যে পড়বে এটা সত্যি। এক্ষেত্রে শ্রমমান উন্নয়নের বিকল্প নেই। রানা প্লাজা ধ্বসের ঘটনায় পুনর্বাসন কার্যক্রমে ধীরগতি আছে। শ্রমমান উন্নয়নের জন্য শ্রম মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ বাড়ানো উচিত। কিভাবে ইউরোপের বাজারে জিএসপি সুবিধা ধরে রাখা যায় সে চেষ্টা করতে হবে।

বৈঠকটি পরিচালনা করেন ডেইলি স্টারের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক সালাউদ্দিন আহমেদ। আলোচনায় আরো উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশে উন্নয়ন গবেষনা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস)- এর সিনিয়ার রিসার্চ ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ, বিজিএমইএ এর সাবেক সভাপতি সালাম মুর্শেদী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এম এম আকাশ, ডিসিসিআই এর সাবেক সভাপতি আসিফ ইব্রাহীম, নারী নেত্রী শিরীন আক্তার ও নাজমা আক্তার, সুজন সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার প্রমুখ।