খেলা

অনূর্ধ্ব ১৯ ক্রিকেট লিগ, টেস্টের সাকিব-মুশফিকদের খোঁজে….

২.ক্রীড়া ডেস্ক, হটনিউজ২৪বিডি.কম ১৭ ফেব্রুয়ারি : বয়সভিত্তিক ক্রিকেট পর্যায়ে এতদিন দেশে বড় দৈর্ঘ্যের ম্যাচের কোনো আয়োজন ছিল না। ফলে সম্ভাবনাময়ী অনেক তরুণ ক্রিকেটারকে নির্ধারিত ওভারের ম্যাচ খেলেই সন্তুষ্ট থাকতে হতো। সেই অপূর্ণতা হয়তো এবার ঘুচবে। ‘টেস্ট’ খেলায় অভ্যস্ত হয়ে উঠবে তারাও।

কারণ প্রথমবারের মত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডে (বিসিবি) আয়োজন করতে যাচ্ছে অনূর্ধ্ব ১৯ যুব ক্রিকেট লিগ। চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়াম ও জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ১৯ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে এ লিগ।

লিগে আট বিভাগের ক্রিকেটাররা চারটি জোনে (নর্থ, ইস্ট, সাউথ, সেন্ট্রাল) বিভক্ত হয়ে খেলবেন। প্রতিটি দলই একে অপরের সঙ্গে চারদিনের ম্যাচে অংশ নেবে। এরপর টুর্মামেন্ট সেরা দুই দল খেলবে ফাইনালে। সবমিলিয়ে লিগে সাতটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে।

লিগে চ্যাম্পিয়ন দল পাঁচ লাখ টাকা এবং রানার আপ দল তিন লাখ টাকার প্রাইজমানি পাবে। ১৯ ফেব্রুয়ারি বিসিবি’র সহ-সভাপতি ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির ‍উদ্দিন এ লিগের উদ্বোধন করবেন।

বুধবার দুপুর একটায় চিটাগাং ক্লাবে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালক এবং টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান।

সংবাদ সম্মেলনে আকরাম খান জানান, ১৯ থেকে ২২ ফেব্রুয়ারি এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে ইস্ট জোন-সেন্ট্রাল জোনের এবং জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সাউথ জোন ও নর্থ জোনের খেলা অনুষ্ঠিত হবে।

২৫ থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ইস্ট জোন ও নর্থ জোনের এবং এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে সাউথ জোন ও সেন্ট্রাল জোনের খেলা অনুষ্ঠিত হবে।

২ থেকে ৫ মার্চ এম আজিজ স্টেডিয়ামে ইস্ট জোন ও সাউথ জোন এবং জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে নর্থ জোন ও সেন্ট্রাল জোনের খেলা অনুষ্ঠিত হবে।

৮ থেকে ১১ মার্চ এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে লিগের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হবে।

আকরাম খান বলেন, ‘সম্ভাবনাময়ী তরুণদের লংগার ভার্সন ক্রিকেটের জন্য গড়ে তুলতেই এ আয়োজন। এর মাধ্যমে আগামীর সাকিব-মুশফিকরা উঠে আসবে বলে আমরা আশাবাদী।’

তিনি বলেন, ‘এতদিন ধরে অনূর্ধ্ব ১৯ পর্যায়ে দেশে লংগার ভার্সনের কোনো লিগ ছিল না। তাই যারা বিভিন্ন বিভাগ ও জোনের হয়ে খেলে তারা ছাড়া বাকিরা বড় দৈর্ঘ্যের ম্যাচ খেলার সুযোগ পেত না। কিন্তু সবারই সুযোগ পাওয়া উচিত।  তারাও সম্ভাবনাময়ী, তারাও আমাদের ভবিষ্যৎ।’

চট্টগ্রাম থেকে উঠে এসেই জাতীয় দলে খেলেছেন, বিখ্যাত হয়েছেন। খেলা থেকে অবসর নিয়ে হয়েছেন জাতীয় দলের নির্বাচক, বিসিবির পরিচালক। নিশ্চয়ই জন্মভূমির জন্য আলাদা আবেগ কাজ করে। না হয় পুরো লিগটা চট্টগ্রামের মাটিতে করার উদ্যোগ নেবেন কেনো?

সংবাদ সম্মেলনে যথারীতি প্রশ্নটা ছুঁড়ে দিতেই আকরাম খানের জবাব, ‘মূলত ঢাকায় কোনো লিগ হলে চট্টগ্রামের আম্পায়ার, স্কোরার, ম্যাচ রেফারিরা তেমন সুযোগ পায় না। বিষয়টা আমার খারাপ লাগে। তাই এবার লিগটা চট্টগ্রামেই করার উদ্যোগ নিয়েছি। এ লিগে যারা দায়িত্ব পালন করবেন সবাই চট্টগ্রামের।’

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা’র (সিজেকেএস) সহ-সভাপতি আলী আব্বাস, ইস্ট জোনের প্রধান কোচ ও সাবেক জাতীয় ক্রিকেটার নুরুল আবেদিন নোবেল, বিসিবির বয়সভিত্তিক দলের নির্বাচক এহসানুল হক সিজান, সিজেকেএস’র নির্বাহী সদস্য আবদুল হাসান আকবর প্রমুখ।

বিসিবির বয়সভিত্তিক দলের নির্বাচক এহসানুল হক সিজান বলেন, ‘বিভিন্ন ক্লাবভিত্তিক লিগে খেলার জন্য ১০-১৫ শতাংশ ক্রিকেটার হয়তো এ লিগে আমরা পাবো না। তবে আমাদের আশা আমরা আগামীর জন্য ভালো ক্রিকেটার গড়ে তোলার প্রক্রিয়াটা শুরু করতে পারবো এ লিগের মাধ্যমে। ১৭-১৯ বছর বয়সী খেলোয়াড়রা এতে সুযোগ পাবে। ১৮ ফেব্রুয়ারি চার জোনের অধিনায়কদের নাম ঘোষণা করা হবে।’

এতে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের হয়ে খেলা অনেকেই খেলবেন। তবে ইনজুরির কারণে এ লিগ পাচ্ছে না বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় ও বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেওয়া মেহেদি হাসান মিরাজ ও উইকেটকিপার জাকির হোসেনকে। পাশাপাশি অলরাউন্ডার সাইফুদ্দিনও মিস করবেন প্রথম ম্যাচ। তবে যারা সুযোগ পাবে তারা ভবিষ্যতে টেস্টের সাকিব-মুশফিক হতে নিজেদের উজাড় করে দিবে- এমনটাই প্রত্যাশা আকরাম খানের।

হটনিউজ২৪বিডি.কম /এআর