রাজনীতি

মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা: হানিফ

১০.নিজস্ব প্রতিবেদক, হটনিউজ২৪বিডি.কম ৩০ জানুয়ারী : আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন, স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের মীমাংসিত বিষয়গুলো নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করে জাতির মধ্য কোন বিভক্তি করা, অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করার কোন অশুভ চক্রান্ত সুফল বয়ে আনবে না। ভবিষ্যতে এধরনের অপচেষ্টা করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শনিবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের পক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন, দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে তখন পরিকল্পিতভাবে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিকৃত করে বিভক্তি ও অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির চেষ্টা হচ্ছে। ভবিষ্যতে এই ধরনের কোন অপচেষ্টা করা হলে দেশবিরোধী এবং স্বাধীনতাবিরোধী অপকর্মের জন্য তাদের আইনের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে কথা বলে পাকিস্তানের বক্তব্যকেই সর্মথন করছেন বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া। এই বিতর্ক তুলে দেশে বিভক্তির রাজনীতি করতে চাইছেন তিনি।

তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া বা বিএনপির রাজনীতি বলতে কিছু নেই। তারা (বিএনপি) রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকতে অন্যায়ও ব্যাপক দুর্নীতি করে জনগণ কর্তৃক ধিকৃত হয়েছে। ক্ষমতার বাইরে থাকাকালে তাদের সন্ত্রাসী ও নাশকতামূলক কর্মকান্ড এবং ভুল সিদ্ধান্তে জনগণ বিরক্ত। আজকে রাজনীতি  ও  জনগণ থেকে বহুদূরে ছিটকে পড়েছে।

আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, বর্তমান সরকার ব্যাপক উন্নয়ন করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে গেছে। এই উন্নয়নের অগ্রযাত্রা দেখে বিএনপিসহ স্বাধীনতাবিরোধীদের মাথা খারাপ হয়ে গেছে। দেশের মানুষ এখনও যেভাবে শেখ হাসিনার প্রতি আস্থাবান রয়েছে, ভবিষ্যতেও আজীবন শেখ হাসিনার প্রতি আস্থা ব্যক্ত করে যাবে। এই আশঙ্কায় দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য, দেশে নতুন করে বিতর্ক সৃষ্টি করে একটা গভীর ষড়যন্ত্রের জন্য এ ধরনের বিতর্ক সৃষ্টি করা হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক ও খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, পাট ও বস্ত্র প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম, দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

হটনিউজ২৪বিডি.কম/এআর